ভোলায় সংঘর্ষ

শহর জুড়ে কঠোর নিরাপত্তা, সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০০:২২

ভোলার বোরহানউদ্দিনে স্থানীয়দের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে চারজন নিহতের ঘটনায় শহর জুড়ে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। নিষিদ্ধ করা হয়েছে সভা সমাবেশ।

এ দিকে ছয় দফা দাবি আদায়ে সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদের ঘোষিত ৩ দিনের কর্মসূচিতে মঙ্গলবার (২২ অক্টোবর) প্রথম দিন কালো পতাকা নিয়ে বিক্ষোভ মিছিলের কথা থাকলেও পুলিশি বাধায় তা হয়নি। তবে ঐক্য পরিষদ বলছে পুলিশি বাধার মুখে তাদের সভা স্থগিত করা হয়েছে। সকালে সারাদেশের কর্মসূচি অনুযায়ী হেফাজত ইসলামের বিক্ষোভ মিছিল করার কথা থাকলেও পুলিশি বাধার কারণে তারাও বিক্ষোভ করতে পারেনি। কিন্তু ভোলা শহরে বিক্ষোভ মিছিল করতে না পারলেও জেলার দৌলতখান উপজেলায় বুকে কালো ব্যাচ ধারণ করে বিক্ষোভ মিছিল করেছে মুসল্লিরা।

এলাকা ঘুরে দেখা যায়, হাটখোলা মসজিদ চত্বরে বিপুল সংখ্যক পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি মোতায়েন রয়েছে। শহর জুড়ে প্রশাসনের কঠোর নিরাপত্তা বলয়ও জোরদার করা হয়। শহরে প্রবেশ পথে যাত্রীদের চেক এবং জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। বোরহানউদ্দিনে এখনো পরিবেশ থমথমে। তবে সোমবারের তুলনায় দোকানপাট খোলা ছিল। বিদ্যালয়গুলোতে উপস্থিতি কম হলেও স্কুলে আসতে শুরু করেছে শিক্ষার্থীরা।

অপরদিকে সংঘর্ষের ঘটনার পর থেকে উপজেলা শহরগুলোর সঙ্গে বাস চলাচল বন্ধ থাকায় ভোগান্তিতে পড়েছে যাত্রীরা। তবে মঙ্গলবার সকাল থেকে বাসে যাত্রী পরিবহন শুরু হয়। দুপুরে শহরের কালিনাথ রায়ের বাজার এলাকা থেকে দুজনকে আটক করা হয়। তবে তাদের কী কারণে আটক করা হয়েছে তা নিশ্চিত করে বলেনি পুলিশ।  

ভোলার পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার জানান, অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে শহরে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। এর আগে সোমবার থেকেই পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত সকল ধরনের সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ করে জেলা প্রশাসন।

ভোলা জেলা প্রশাসক মাসুদ আলম ছিদ্দিক জানান, সকল ধরনের সভা সমাবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। পুরো জেলার সার্বিক পরিস্থতি শান্ত রয়েছে।

উল্লেখ্য, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে মহানবীকে (সা.) কটূক্তির অভিযোগে ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার ঈদগাহ মসজিদ চত্বরে তৌহিদী জনতার ব্যানারে গত রবিবার বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ ডাকা হয়। এতে পুলিশের হস্তক্ষেপে সকালে কর্মসূচি শেষ হয়। এরপরই হঠাৎ পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন স্থানীয়রা। এ ঘটনায় চারজন নিহত হয়েছেন। পুলিশ সদস্যসহ আহত হয়েছেন অন্তত শতাধিক মানুষ। ঘটনার পরদিন (সোমবার) অজ্ঞাতনামা পাঁচ হাজার জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করে পুলিশ।

এবিএন/শংকর রায়/জসিম/পিংকি

এই বিভাগের আরো সংবাদ