সিরাজগঞ্জে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেল ৩ স্কুলছাত্রী

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৪ আগস্ট ২০১৯, ১৮:১২

সিরাজগঞ্জ একরাতে তৃতীয় শ্রেণির স্কুল ছাত্রীসহ ৩ ছাত্রীকে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা করলেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ আনিসুর রহমান। ভ্রাম্যমান আদালত সূত্রে জানা যায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গতকাল শুক্রবার রাতে সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার দিয়াড় পাচিল গ্রামে সংগীয় ফোর্স নিয়ে কনের বাড়ীতে উপস্থিত হন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

তখন কনের বাড়ীতে কনে দিয়াড় পাচিল গ্রামের আঃ মালেক রতনের মেয়ে ছাত্রী ফাতেমা খাতুনের (১৬) সাথে পৌর এলাকার কালীবাড়ী ঘোষপাড়া মহল্লার আঃ বারীর ছেলে ও স্থানীয় কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান ৩য় বর্ষের ছাত্র বায়েজিদ বোস্তামীর (২১) বিয়ের আয়োজন চলছিল। ভ্রাম্যমাণ আদালত বাল্যবিয়ে বন্ধ করে কনের বাবা আঃ মালেক রতনকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

রাত ৮ টায় একই এলাকার মূলীবাড়ী গ্রামে অভিযান চালান ভ্রাম্যমাণ আদালত। তখন কনের বাড়ীতে কনে নয়ন শেখের মেয়ে ও স্থানীয় হাই স্কুলের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী নুপুর খাতুনের (১৪) সাথে পৌর এলাকার হোসেনপুর মহল্লার মৃত আব্দুল শেখের ছেলে হিরা মন্ডলের (৩২) বিয়ের আয়োজন চলছিল। ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে কনের বাবা নয়ন শেখ ও বর হিরা মন্ডল প্রত্যেককে ৫ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়।

এরপর রাত ৯ টায় একই এলাকার শিলন্দা পূর্বপাড়া গ্রামে অভিযান চালান ভ্রাম্যমাণ আদালত। তখন কনের বাড়ীতে কনে শিলন্দা পূর্বপাড়া গ্রামের সেলিম হোসেনের মেয়ে ও স্থানীয় স্কুলের ৩য় শ্রেণির ছাত্রী সনি খাতুনের (১৩) সাথে চরবনবাড়ীয়া গ্রামের ইমান আলীর ছেলে মনিরুল ইসলামের  (২৫) বিয়ের আয়োজন চলছিল। পরে ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে কনের পিতা সেলিম হোসেনকে ১০ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়। এরপর প্রত্যেক কনের বাবার কাছ থেকে কনে প্রাপ্ত বয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দিবেন না মর্মে মুচলেকাও নেয়া হয়।
 

এবিএন/এস.এম তফিজ উদ্দিন/জসিম/তোহা

এই বিভাগের আরো সংবাদ