মদনে বিদ্যালয়ের বাউন্ডারি দেয়াল ভাঙাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ঘ আহত ২, শিক্ষক লাঞ্চিত

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১৯ জুন ২০১৯, ২২:১১

নেত্রকোনার মদনে বিদ্যালয়ের বাউন্ডারি দেয়াল  ভ্যাকুর ধাক্কায় ভাঙাকে কেন্দ্র করে  দুই পক্ষের সংঘর্ষে অভিভাবকসহ দুইজন আহত ও শিক্ষক লাঞ্চিত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। বুধবার উপজেলার চানগাঁও ইউনিয়নের চাহাম উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।  আহত অভিভাবক বজলু মিয়া  ও তার ভাই মোঃ আবু সাইদকে  মদন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ নিয়ে বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক মাহবুব আলম বাদী হয়ে  মদন থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

জানা যায়, জেলা পরিষদ থেকে ৪ লাখ টাকা বরাদ্দ পেয়ে  চাহাম উচ্চ বিদ্যালয়ের বাউন্ডারি দেয়াল নির্মাণ করে। অপর দিকে  ২ কোটি ৮৮ লাখ টাকা ব্যয়ে  বিদ্যালয়ে ৪ তলা ভবন নির্মাণ করার জন্য দোলন এন্ডার প্রাইজ নামীয় ঠিকাদারের কাজ চলমান রয়েছে। কিন্তু  ঠিকাদার কাজ চলাকালীন ভ্যাকু দিয়ে মাটি কাটার সময় দেয়াল ভেঙে কিছু অংশ  মাটিতে পড়ে যায় এবং অন্যান্য অংশে ফাটল ধরে।

এ নিয়ে বুধবার বিদ্যালয় চলাকানীন সময়ে সহকারী শিক্ষক মোঃ মাহবুব আলম ভবন নির্মাণের পাহারাদার চানগাওঁ গ্রামের  রাহিম উদ্দিনের কাছে দেয়াল ভাঙা,ফাটল, দেয়ালের সামনে থেকে কেন মাটি সড়ানো হয়নি এ বিষয়ে জানতে চাইলে  দুজনের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয়। এ খবর পেয়ে রাহিম উদ্দিনের লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে বিদ্যালয়ে হামলা চালায় এবং সহকারি শিক্ষক মাহবুব আলমকে লাঞ্চিত করে।

এ সময় অভিভাবক বজলু মিয়া ও তার ভাই আবু মিয়া বিদ্যালয়ে উপস্থিত হলে তাদেরকের  মারপিট করলে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি,প্রধান শিক্ষক ও অন্যান্য শিক্ষক  শিক্ষার্থীরা প্রাণের ভয়ে বিদ্যালয় ছেড়ে পালিয়ে যায়।

লাঞ্চিত সহকারি শিক্ষক মাহবুব আলম জানান, বিদ্যালয়ের একটি বাউন্ডারি ওয়াল ভেঙে গেছে,আরো একটি ভেঙে যাওয়ার পথে এ বিষয়ে প্রতিবাদ করতেই আমাকে লাঞ্চিত কওে এবং দুজনকে মাথা ফাটিয়ে পেলে। অবশেষে পালিয়ে আমরা রক্ষা পেয়েছি।

অভিযুক্ত পাহারাদার  রাহিম জানান, ক্ষতি হওয়া দেয়াল কাজ শেষে মেরামত করে দেওয়া হবে বলে ঠিকাদার জানিয়ে ছিলেন। কিন্তু শিক্ষক মাহবুব আলম তা না মেনে নির্মাণাধীন  কাজ বন্ধ করে দিলে তার সাথে কথাকাটা কাটি হয়। এর বেশি আমি জানি না।

বিদ্যালয়ের সভাপতি আব্দুল লতিফ তালুকদার বলেন,আমি সহকারি শিক্ষক মাহবুব আলমকে বলেছিলাম তুমি বল,তারা যেন ওয়াল থেকে মাটি দূরে রাখে।  এ সময় মাহবুব  কথা বললে তারা  ক্ষিপ্ত হয়ে এ ঘটনা ঘটায়।

ওসি মোঃ রমিজুল হক জানান, আমি ঘটনা স্থল পরিদর্শন করেছি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।  

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ওয়ালীউল হাসান বলেন,প্রধান শিক্ষকের মাধ্যমে ঘটনার খবর পেয়েছি। সেখানে দু’জন আহত হয়েছেন। ঘটনা স্থলে পুলিশ প্রেরণ করেছি।  যেহেতু একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সেখানে যেন এমন ঘটনা আর না ঘটে এর জন্য থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করার জন্য বলেছি।
                
এবিএন/তোফাজ্জল হোসেন/জসিম/রাজ্জাক

এই বিভাগের আরো সংবাদ