জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে ডোমারের মেয়ে নারী পুলিশ সদস্য নিশাত

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১২ জুন ২০১৯, ১২:০০

জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে কঙ্গোতে গেলেন নীলফামারীর জেলার ডোমার উপজেলার মেয়ে নারী পুলিশ সদস্য নিশাত আল চাঁদনী। 

আফ্রিকার দেশ কঙ্গোতে শান্তি স্থাপন ও শান্তিরক্ষায় বাংলাদেশ পুলিশ শান্তিরক্ষীদের সাথে অনন্য অবদান রেখে প্রশংসা অর্জন করেছেন। যা দেশবাসীর জন্য বিরল সম্মান ও গৌরবের। তারেই ধারাবাহিতকায় গত ২৭ মে ১৮০ জন বাংলাদেশ পুলিশের একটি নারী কন্টিনজেন্ট জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা বাহিনীর কঙ্গো মিশনে যোগ দিয়েছে। সেই দলেই রয়েছে ডোমারের মেয়ে নারী পুলিশ সদস্য নিশাত-আল-চাঁদনী। 

নারী পুলিশ সদস্যের এই দলটি বাংলাদেশ ফরমড পুলিশ ইউনিট-১ কন্টিনজেন্ট প্রতিস্থাপন করবে। তারা জাতিসংঘের ভাড়া করা বিশেষ বিমানে গত ২৭ মে রাতে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করেছেন।

পুলিশ সদর দপ্তরের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা জাতিসংঘ মিশনগামী ব্লু হেলমেট পরিহিত নারী শান্তিরক্ষী বাহিনীর পুলিশ সদস্যদের বিমান বন্দরে বিদায় জানান। কন্টিনজেন্টটির কমান্ডারের দায়িত্ব পালন করছেন পুলিশ সুপার সালমা সৈয়দ পলি।

নিশাত ডোমার পৌরসভার ভাদুর স্কুল সংলগ্ন অবসরপ্রাপ্ত বিডিআর সদস্য মো. আলাউদ্দিন আলীর মেয়ে ও উপজেলার বামুনিয়া ইউনিয়নের পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের কর্মকর্তা মো. আলমগীর হোসেনের স্ত্রী। ২০১১ সালে নিশাত পুলিশ সদস্য হিসেবে চাকুরীতে যোগদান করেন। মিশনে যাওয়ার সময় পুলিশ অফিস পঞ্চগড়ে সে কর্মরত ছিল। নিশাত তার পরিবারকে জানিয়েছেন বিমানে উঠার সাথে সাথে একটি বিশেষ অনুভূতি কাজ করছিল। নারী পুলিশ সদস্য হিসেবে দেশের প্রতিনিধিত্ব করতে পারা বিশেষ সম্মানের। 

কঙ্গোতে শান্তিরক্ষা মিশনে পেশাদারিত্ব ও সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করার জন্য নিশাত সকলের দোয়া ও আশীর্বাদ চেয়েছেন। সারা বাংলাদেশ থেকে মাত্র ১৮০ জন নারী পুলিশ সদস্য জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে যাওয়ায় এবং সেই দলের সদস্য হিসেবে থাকতে পারায় নিজেকে গর্বিত মনে করছেন নিশাত।

এবিএন/মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন/গালিব/জসিম
 

এই বিভাগের আরো সংবাদ