তিতাসে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে দুই ভাইয়ের সংঘর্ষে আহত ৮

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১৯ মে ২০১৯, ১৬:০৯

কুমিল্লার তিতাস উপজেলায় জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে আপন দুই ভাইয়ের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছ্ েএসময় উভয় পক্ষের ৮ জন আহত হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল শনিবার বিকালে উপজেলার পুরান বাতাকান্দি গ্রামে। আহতদেরকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে তিতাস উপজেলা স্বস্থ্য কমপ্লেক্স ও হোমনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে ভর্তি করেছে।

এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায় পুরান বাতাকান্দি গ্রামের মৃত হাফিজ উদ্দিন ভূইয়ার ছেলে মজিবুর রহমান তারু মেম্বার ও তার ছোট ভাই ধন মিয়ার মধ্যে দীর্ঘ দিন ধরে জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে,তারই জের ধরে শনিবার বিকালে তারা দুই ভাই সংঘর্ষে জরিয়ে পরে এসময় উভয় পক্ষের ৭/৮ জন আহত হযেছে। কয়েক বছর পূর্বেও তারু মেম্বারকে কুপিয়ে আহত করে ছিল। এবং ধন মিয়ার সাথে গ্রামের কয়েকটি পরিবারের জমি সংক্রান্ত মামলা রয়েছে।

এবিষয়ে মজবুর রহমান তারু মেম্বার সাংবাদিকদের জানান পুরান বাতাকান্দি কালিমন্দির হইতে তার নিজ বাড়ির রাস্তার পাশে গাছে রং দিতে ছিল তাহার ছেলে সাতানী ইউনিয়ন ছাত্র লীগের সাধারণ সম্পাদক জিয়াউর রহমান। এমন সময় ধন মিয়া ও তাহার ছেলেরা এসে জিয়াকে মারধর করে,এসময় জিয়ার আত্ম চিৎকার শুনে আমরা ঘটনা স্থলে আসলে আমাকে এবং আমার বড় ছেলে অপু সারয়োর ও তার স্ত্রী রুমানা আক্তারকেও এলোপতারী পিঠিয়ে আহত করে, এবং আমার ছেলের বউয়ের গলায় থাকা স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নিয়ে যায় যার মূল্য আনুমানিক ৪৫ হাজার টাকা,এবং দুইটি মোবাইল ফোনও নিয়ে যায়।

এদিকে প্রতি পক্ষ ধন মিয়া বলেন আমার লাগানো গাছে জিয়া রং দিতেছে এমন সময় আমি বাদা দিলে জিয়া আমাকে লাঠি দিয়ে বারি মেরে আমার হাত ভেঙ্গে ফেলে এবং আমার স্ত্রী ও ছেলেরা আসলে তাদেরকেও এলোপতারী পিঠিয়ে আহত করে। আহতরা হলো মজিবুর রহমান তারু মেম্বার, জিয়াউর রহমান, অপু সারয়োর ও তার স্ত্রী রুমানা আক্তার,ধন মিয়া,খোরশেদা বেগম,ফারুক হোসেন,তোফাজ্জল হোসেন ও মৌসুমী আক্তার।

এ ঘটনায় উভয় পক্ষই তিতাস থানায় লিখিত অভিয়োগ করেছে। অভিযোগের তদন্ত কর্মকর্তা এস আই মাজেদুল ইসলাম বলেন দুই পক্ষেরই অভিযোগ পেয়েছি এবং ঘটনা স্থল পরিদর্শন করেছি। বর্তমানে তদন্তাধিন আছে। এবিষয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের নিকট জানতে চাইলে তিনি জানান তাদের মধ্যে আগে থেকেই বিরোধ চলে আসছে। আমিও কয়েকবার চেষ্টা করেছি তাদের বিরোধ মিমাংশা করে দেবার জন্য কিন্ত কেই বিচার মানেনা।


এবিএন/কবির হোসেন/জসিম/তোহা

এই বিভাগের আরো সংবাদ