গলাচিপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সপ্তাহ ধরে পানি নেই : জনস্বাস্থ্য হুমকির পথে

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২২ এপ্রিল ২০১৯, ২০:১০

পানির অপর নাম জীবন। জনসাস্থ্যের অবনতি ঘটলে স্বাভাবিক ভাবে হাসপাতাল অথবা ডাক্তারখানায় যাওয়াটাই স্বাভাবিক হলে শারীরিক সুস্থ্যতার জন্য ঔষধ খেতে পানির প্রয়োজন হলেও গলাচিপা উপজেলা ৫০ শয্যা সরকারী হাসপাতালে এক সপ্তাহ ধরে পানি নেই।

 যার কারনে রোগীদের ভোগান্তির কোন শেষ নেই। অন্যদিকে গলাচিপা অস্বাভাবিক রোগীর ভীড়ের পাশাপাশি রয়েছে ডায়রিয়া সহ নানান রকমের রোগাক্রান্ত রোগী ।

শুধু তাই নয়  দিন দিন ডায়রিয়ার রোগীর সংখ্যা বাড়ার সাথে দেখা দিয়েছে পানির অভাব । অন্যদিকে  হাসপাতালে মাত্র দুই জন চিকিৎসক দিয়ে রোগীদের সেবা দিতে হিমশিম খাচ্ছে বলে একটি সূত্র জানিয়েছে।

সরজমিনে ও স্থানীয় প্রতিনিধির পাঠানো তথ্যে জানা যায়, গতকাল রবিবার পর্যন্ত ডায়রিয়া, মারামারি ও অন্যান্য রোগে আক্রান্ত হয়ে ১শত ৪২জন রোগী রয়েছে। অন্যদিকে ৭দিন ধরে হাসপাতালে পানি না থাকায় রোগীর স্বজনরা বিভিন্ন জায়াগা থেকে পানি সংগ্রহ করছেন বলে জানিয়েছেন।

 গলাচিপা সদর ইউনিয়নের চরখালী গ্রামের মোস্তফা সরদারের স্ত্রী নুরুন নাহার বেগম মারামারির ঘটনায় শনিবার ভর্তি হয়।চিকনিকান্দি ইউনিয়নের পানখালি গ্রামের বশির মোল্লা (৪০),জানান শুক্রবার ডায়রিয়া হলে গলাচিপা হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পরেই  দেখি হাসপাতালে পানি নেই। তার লোকজনে হাসপাতালের পুকুর থেকে পানি সংগ্রহ করে  ব্যবহার করেন।

এ ব্যাপারে হাসপাতালের জুনিয়র ম্যাকানিক রতন গাজী জানান, পানির লাইনের মটার পুড়ে যাওয়ায় পানি পাচ্ছে না রোগিরা। ফলে রোগিদের ভোগান্তির শিকার হয়েছে। আরো দুইদিন পর পানি পাওয়া যাবে কিনা তা তিনি বলতে পারছেন না।

এ বিষয়ে আজ ২২ এপ্রিল সোমবার সন্ধায়  স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম মুঠোফোনে বলেন, অস্থায়ী ভাবে স্থায়ীব্যবস্থাপনায় মটরের মাধ্যমে পুকুর থেকে পাইপের মাধ্যমে টয়লেটের জন্য পানি সরবারহ করারো হচ্ছে, হাসপাতালের পানি উঠানোর একমাত্র   মটরটি  নষ্ট হয়ে যাওয়ায় এ সমস্যাটি দেখা দিয়েছে, এ বিষয়টি আমি কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে ব্যবস্থা নিয়েছি, আশা করছি খুব শিঘ্রই এ সমস্যার সমাধান হবে।


এবিএন/জিল্লুর রহমান জুয়েল/জসিম/তোহা

এই বিভাগের আরো সংবাদ