আগৈলঝাড়ায় প্রতিমা ভাংচুর, থানায় মামলা দায়ের

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২০ এপ্রিল ২০১৯, ২১:২১

বরিশালের আগৈলঝাড়ায় হিন্দু সম্প্রদায়ের একটি রাধাগোবিন্দ মন্দিরের বিভিন্ন প্রতিমা ভাংচুর ও লুটপাট করেছে দুর্বৃত্তরা।  সংবাদ পেয়ে স্থানীয় এমপি ও পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ ঘটনায় মন্দির কমিটির সভাপতি বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার গৈলা ইউনিয়নের পূর্ব পতিহার গ্রামের সরকার (শীল) বাড়িতে শ্রীশ্রী রাধাগোবিন্দ মন্দিরে বিগত ৭০বছর ধরে পূজা-অর্চনা ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানাদি করে আসছেন ওই বাড়িসহ স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে রাধাগোবিন্দ মন্দিরের পাকা ভবনের তালা ভেঙ্গে ভিতরের ঢুকে লক্ষ্মী নারায়ণ, রাধা কৃষ্ণ, গৌর নিতাইসহ ৬টি প্রতিমা ভাংচুর করে। এ সময় প্রতিমার গায়ে থাকা স্বর্ণের টিকলি, টিপ, কাঁসা-পিতলের থালা, কলস, প্রদীপ, ঘট, পঞ্চ প্রদীপ, কোশা-কুশি, নগদ প্রায় ৪ হাজার টাকাসহ আনুমানিক ২০ কেজি ওজনের কাঁসা-পিতলের পূজার সরঞ্জাম লুটপাট করে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা।

এ খবর জানতে পেরে পার্বত্য শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ কমিটির আহ্বায়ক (মন্ত্রী) ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ্ এমপি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং পুলিশ প্রশাসনকে দোষীদের দ্রুত খুঁজে বের করে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন। এসময় দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার রাকিব হাসান, গৌরনদী সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার আ. রব হাওলাদার, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিপুল চন্দ্র দাস, দৈনিক সমকালের উপ-সম্পাদক সাংবাদিক অজয় দাশগুপ্ত, থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আফজাল হোসেন, ওসি (তদন্ত) নকিব আকরাম, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও বাকাল ইউপি চেয়ারম্যান বিপুল দাস, গৈলা ইউপি চেয়াম্যান শফিকুল হোসেন টিটুসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

পরে মন্দির কমিটির সভাপতি পরাণ চন্দ্র শীল বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামাদের আসামী করে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নং- ১১ (১৯-০৪-২০১৯)।সহকারী পুলিশ সুপার আব্দুর রব হাওলাদার সাংবাদিকদের জানান, হিন্দুদের মন্দির ভাংচুরের ঘটনায় দু:খ প্রকাশ করছি। এ ঘটনার সাথে যারা জড়িত তাদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান করা হবে।

এবিএন/অপূর্ব লাল সরকার/জসিম/রাজ্জাক

এই বিভাগের আরো সংবাদ
well-food