‘সাত’ বছরেও হদিস মেলেনি ইলিয়াস আলীর : আশায় স্বজনরা

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১৬ এপ্রিল ২০১৯, ১৫:৩৪

বিএনপির প্রভাবশালী নেতা সিলেট-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য এম ইলিয়াস আলী নিখোঁজের সাত বছর পূর্ণ হচ্ছে আগমীকাল বুধবার। ২০১২ সালের ১৭ এপ্রিল মধ্যরাতে নিজ বাসায় ফেরার পথে ঢাকার বনানীর সাউথ পয়েন্ট স্কুল এন্ড কলেজের সামনে থেকে নিখোঁজ হন বিএনপির তৎকালীন কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও সিলেট জেলার সভাপতি এম ইলিয়াস আলী ও তার গাড়িচালক আনসার আলী।

 মধ্যরাতে মহাখালী থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় তার প্রাইভেটকারটি উদ্ধার করে পুলিশ। সেই থেকে তারা দুজন নিখোঁজ রয়েছেন। নিখোঁজের সাত বছরেও সন্ধান মেলেনি তাদের।

ইলিয়াস আলী কোথায় ‘আছেন, কেমন আছেন’? তবে কী বেঁচে আছেন? ইলিয়াস নিখোঁজের এমন সব প্রশ্নের আজনা উত্তর আজও রহস্যাবৃতই রয়ে গেছে। ইলিয়াসকে ‘খোঁজে পেতে’ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কোনো তৎপরতাও এখন আর দৃশ্যমান নয়। অবশ্য ইলিয়াস আলী ও তার গাড়িচালক আনসার আলীকে ফিরে পেতে এখনও আশায় আছেন তাদের স্বজনরা। পরিবারের দাবি- তারা যে কোনো মূল্যে ইলিয়াস আলী ও তার গাড়িচালক আনসার আলীকে অক্ষত এবং সুস্থ অবস্থায় তাদের মাঝে ফিরে পেতে চান। এ জন্য তারা দেশবাসীর কাছে দোয়া কামনা করেন।

এদিকে ইলিয়াস আলীর সন্ধান দাবি ও সুস্থতা কামনা করে তিন দিনের কর্মসূচি হাতে নিয়েছে সিলেট জেলা বিএনপি। কর্মসূচির মধ্যে আছে আগমীকাল বুধবার হযরত শাহজালাল (রহ.) দরগাহ মসজিদে মিলাদ ও দোয়া, বৃহস্পতিবার দুপুরে ‘নিখোঁজ’ নেতাকর্মীদের ফিরিয়ে দেয়ার দাবিতে জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি এবং আগামী ২৯ এপ্রিল ‘গুমের রাজনীতি ও বর্তমান বাংলাদেশ’ শীর্ষক আলোচনা সভা।

স্বামীকে ফিরে পাওয়ার অপেক্ষায় ইলিয়াসের স্ত্রী তাহসিনা রুশদির লুনা বলেন, সরকার আন্তরিক হলে ইলিয়াসকে খুঁজে পাওয়া সম্ভব। কেননা গুম-নিখোঁজ হওয়া অনেক ব্যক্তি এরই মধ্যে তাদের পরিবারের কাছে ফিরে এসেছেন। আমরাও বিশ্বাস করি, ইলিয়াস আলী একদিন ফিরে আসবেন। আমার শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত ইলিয়াসের অপেক্ষায় থাকব। বাবাকে ফিরে পাওয়ার আশায় দিনরাত অপেক্ষার প্রহর গুনছেন ইলিয়াসপুত্র আবরার ইলিয়াস, লাবিব সারার ও একমাত্র মেয়ে সাইয়ারা নাওয়াল।

সিলেট জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ বলেন, ইলিয়াস আলী জনপ্রিয় নেতা ছিলেন। দেশের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে তিনি ছিলেন সোচ্চার। এ কারণেই তাকে গুম করা হয়েছে। সরকারের সদিচ্ছা থাকলে ইলিয়াসকে ফেরত পাওয়া সম্ভব।

প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের ১৭ এপ্রিল রাতে নিজের গাড়িতে করে বনানী থেকে বাসায় ফেরার পথে নিখোঁজ হন ইলিয়াস আলী। তার সঙ্গে গাড়িচালক আনসার আলীও নিখোঁজ হন। এ ঘটনার প্রতিবাদে দেশজুড়ে শুরু হয় আন্দোলন। পালিত হয় হরতাল, মিছিল, সভা-সমাবেশ, মানববন্ধন, গণস্বাক্ষর সংগ্রহসহ নানা কর্মসূচি। হরতাল পালনের সময় সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলায় জনতার সঙ্গে পুলিশ ও আওয়ামী লীগের সংঘর্ষ হয়। পুলিশের গুলিতে নিহত হন বিএনপির আট কর্মী।


এবিএন/মুহাজিরুল ইসলাম রাহাত/জসিম/তোহা

এই বিভাগের আরো সংবাদ
well-food