সিরাজগঞ্জে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেল ৩ স্কুল ছাত্রী

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৬ এপ্রিল ২০১৯, ১৭:৫০

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলায় এক রাতে ৩ টি বাল্যবিবাহ বন্ধ করেছেন সদরের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আনিসুর রহমান। এ অভিযানে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেল ৩ স্কুল ছাত্রী।

 ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা যায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার কান্দাপাড়া গ্রামে পুলিশ ফোর্স নিয়ে কনের বাড়ীতে উপস্থিত হন ভ্রাম্যমাণ আদালত। তখন কনের বাড়ীতে ওই গ্রামের আবু সাইদের মেয়ে অষ্টম শেণির স্কুল ছাত্রী শান্তি খাতুনের (১৩) সাথে বর পৌর এলাকার রায়পুর মহল্লার রফিকুল ইসলামের ছেলে রেজাউল করিমের (৩১) বিয়ের আয়োজন চলছিল।

 এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে কাজী কৌশলে পালিয়ে যায়। এরপর ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে বর রেজাউল করিম ও কনের বাবা আবু সাইদকে ৫ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে ১ মাসের বিনাশ্রম কারাদ- প্রদান করা হয়। এদিকে রাত ৮ টার দিকে একই এলাকার ডুমুর গোলামী গ্রামে অভিযান চালান ভ্রাম্যমাণ আদালত।

তখন কনের বাড়ীতে ওই গ্রামের আশরাফ আলীর মেয়ে ও স্থানীয় মাদ্রাসার অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী আয়েশা খাতুনের (১৩) সাথে বর রায়গঞ্জ উপজেলার বামনবাগ গ্রামের আঃ সামাদের ছেলে নুরনবীর (২১) বিয়ের আয়োজন চলছিল। এরপর ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে বর নুরনবী ও কনের বাবা আশরাফ আলীকে ৫ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে ১ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়।

এরপর রাত সাড়ে ৯ টার দিকে একই এলাকার খলিশাকুড়া গ্রামে অভিযান চালান ভ্রাম্যমাণ আদালত। তখন কনে ওই গ্রামের আরিফুল ইসলামের মেয়ে ও দশম শ্রেণির ছাত্রী আরিফা খাতুনের (১৬) সাথে বালিঘুগরী গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে সিহাব আলীর (২০) বিয়ের আয়োজন চলছিল। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে কাজী কৌশলে পালিয়ে যায়। পরে এ বাল্যবিয়ে বন্ধ করে দেয়া হয়। এ ৩টি বাল্যবিয়ের কনের বাবা ও বরের বাবার কাছ থেকে কনে ও বর প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিবাহ দিবেন না মর্মে মুচলেকা নেয়া হয়।


এবিএন/এস.এম তফিজ উদ্দিন/জসিম/তোহা

এই বিভাগের আরো সংবাদ