বাউফলে এস.এস.সি পরীক্ষার্থীর আত্মহত্যা

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৩ এপ্রিল ২০১৯, ১৩:৩২

পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলায় প্রেমিকের পরিবার বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় মীম আক্তার (১৭) নামে এস.এস.সি পরীক্ষায় অংশ নেয়া এক শিক্ষার্থী গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। 

পুলিশ গতকাল মঙ্গলবার সকালে লাশ ময়না তদন্তের জন্য পটুয়াখালী মর্গে পাঠায় । মীম ভরিপাশা মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এ বছর এস.এস.সি পরীক্ষা দিয়েছিল।

স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার কেশবপুর ইউনিয়নের ভরিপাশা গ্রামের রশিদ খানের মেয়ে মীম গত সোমবার দুপুর ১টার দিকে ওড়না পেচিয়ে বসত ঘরের দোতালায় আড়ার সঙ্গে গলায় ফাঁস দেয়। এ সময়ে মীমের মা জেসমিন বেগম পিছনে রান্না ঘরে কাজে ব্যস্ত ছিলেন। ঘরের ভিতরে শব্দ শুনে তিনি দোতালায় গিয়ে দেখেন মীম গলায় ফাঁস দিয়ে ঝুলে আছে। 

এ সময়ে তাঁর চিৎকার শুনে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে মীমকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করেন। পরে পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ এসে লাশ থানায় নিয়ে যায়।

মীমের মা জেসমিন বেগম বলেন, একই গ্রামের পার্শ¦বর্তী বাড়ীর হানিফ খায়ের ছেলে খলিল ও মীম একই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে এ বছর এস.এস.সি পরীক্ষা দিচ্ছে। দীর্ঘ দিন ধরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। বিষয়টি তিন মাস আগে মীম আমাকে জানিয়েছিল। পরে আমি মীমের বাবাকে বিষয়টি জানালে কয়েক দিন আগে মীমের বাবা তাদের সম্পর্ক মেনে নিয়ে বিয়ের প্রস্তাব দেয় খলিলের পরিবারের  কাছে। কিন্তু তা প্রত্যাখ্যান করেন খলিলের বড় ভাই শাহিন খা। প্রত্যাখানের কথা জানতে পেরে মীম অভিমানে আত্মহত্যা করে।

ওই প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক মোঃ মনিরুজ্জামান বলেন, মীম খুবই শান্ত স্বভাবের মেয়ে ছিল। মীম ও খলিল  দুজনই এবার এস.এস.সি পরীক্ষা দিচ্ছে। বিদ্যালয় চলাকালীন সময়ে ওদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক থাকতে পারে আচারণে এমনটি মনে হয়নি।

বাউফল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, লাশ ময়না তদন্তের জন্য পটুয়াখালী মর্গে পাঠানো হয়েছে। তদন্তের রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছে না।

এবিএন/মো. দেলোয়ার হোসেন/গালিব/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ
well-food