সিরাজগঞ্জে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেল দুই স্কুল ছাত্রী

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৩ মার্চ ২০১৯, ১৭:৪৯

সিরাজগঞ্জে ভ্রাম্যান আদালতের পৃথক অভিযানে ২টি বাল্যবিয়ে বন্ধ করলেন সদরের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ আনিসুর রহমান। এ বাল্যবিয়ে থেকে অষ্টম শ্রেণির ২ স্কুল ছাত্রী রক্ষা পেল। এ নিয়ে এলাকায় ব্যাপক সচেতনতার সৃষ্টি হয়েছে।

 এ আদালতের পেশকার আ. সাত্তার আজ শনিবার বিকেলে সাংবাদিকদের জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গতকাল শুক্রবার রাত ৯ টায় সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার সয়দাবাদ গ্রামে বাল্যবিবাহ বন্ধে পুলিশ ফোর্স নিয়ে কনের বাড়ীতে উপস্থিত হন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

 এ সময় কনের বাড়ীতে সয়দাবাদ গ্রামের সুজাব আলীর মেয়ে ও স্থানীয় হাই স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী সুবর্ণ খাতুনের (১৪) সাথে বর একই উপজেলার খোকশাবাড়ী গ্রামের নূর ইসলামের ছেলে রাজুর (১৯) বিয়ের আয়োজন চলছিল। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে কাজী কৌশলে পালিয়ে যায়। বর ও কনে দুজনই অপ্রাপ্তবয়স্ক। রাতেই ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে বরের চাচা সবুজকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ১ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। পরে বর ও কনের বাবার কাছ থেকে বর ও কনে প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দিবেন না মর্মে মুচলেকা নেয়া হয়।

 এর আগে শুক্রবার সকালে সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকার হোসেনপুর মহল্লায় পুলিশ ফোর্স নিয়ে কনের বাড়ীতে উপস্থিত হন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় কনের বাড়ীতে রবিউল ইসলামের মেয়ে ও স্থানীয় হাই স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী রুকসানা খাতুনের (১৪) সাথে বর একই এলাকার চক কোবদাসপাড়া মহল্লার হুমায়ুন ইসলামের ছেলে আবির হোসেনের (২১) বিয়ের আয়োজন চলছিল। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে কাজী ও বরপক্ষ পালিয়ে যায়।

বিকেলে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে কনের মা কহিনুর বেগমকে ১৪ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ১ মাসের বিনাশ্রম কারাদ- প্রদান করা হয়। পরে কনের মায়ের কাছ থেকে মেয়ের ১৮ বছর না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দিবেন না মর্মে মুচলেকা নেয়া হয়। এ সময় সয়দাবাদ ইউ.পি চেয়ারম্যান নবীদুল ইসলাম, সদর থানার এসআই মানিক, এএসআই মোখলেছ, পৌর ভূমি অফিসের ভূমি সহকারী কর্মকর্তা নজরুল ইসলামসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।


এবিএন/এস.এম তফিজ উদ্দিন/জসিম/তোহা

এই বিভাগের আরো সংবাদ