রাণীশংকৈলে স্কুল শিক্ষকের বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১১ মার্চ ২০১৯, ১৩:৪৫

ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈলে নব্য-সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে ৩য় শ্রেণীর ছাত্রীকে নির্যাতন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। 

ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে লেহেম্বা ইউনিয়নের সংশ্লিষ্ঠ ইউপি সদস্য মরিয়া হয়ে উঠেছে। স্থানীয় লোকজন লম্পট শিক্ষকের বিচারের দাবিতে ফুসে উঠেছে।

গতকাল ১০ মার্চ সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, উপজেলার পাটগাঁও নব্য সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ধন সিংহ রায় ৩য় শ্রেণীর এক শিক্ষার্থীকে প্রায় সময় ক্লাসের ফাঁকে শারীরিক নির্যাতন চালিয়ে আসছিল। 

সম্প্রতি ঘটনাটি পরিবারের লোকজনের মাঝে জানাজানি হলে অভিভাবক মহল বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও অন্যান্য শিক্ষকদের কাছে বিচার দাবি করে। 

এ সময় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মন্টু রায় ও প্রধান শিক্ষক ধনেশ্বর রায় শিক্ষার্থীর অভিভাবককে নিয়ে আপোষ মিমাংসায় বসে বিষয়টি অনাকাঙ্খিত বলে অভিযুক্ত শিক্ষক ভুল শিকার করেছে। ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে ইউপি সদস্য মোকসেদ আলী সাংবাদিকদের সাথে দৌড়ঝাপ শুরু করেছে। 

এ প্রসঙ্গে দোশিয়া গ্রামের সোহরাব আলীর স্ত্রী বলেন আমার মেয়েকে আর স্কুলে পাঠাতে চাচ্ছিনা কিন্তু মেম্বার সাহেব বলেছে মেয়েটাকে তো বিয়ে দিতে হবে তাই কলংক রটানো যাবে না। 

এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক ধনেশ্বর রায় বলেন বিষয়টি আমি শুনেছি বিপিএড পরীক্ষার কারণে সমাধান দেওয়া সম্ভব হয়নি। 

সংশ্লিষ্ঠ ইউপি সদস্য মোকসেদ আলী বলেন সাংবাদিক ভাই আপনি চা খরচের জন্য কিছু রাখেন বিষয়টি তেমন কিছু না তা ছাড়া ঘটনাটি সমাধান হয়ে গেছে। অভিযুক্ত শিক্ষক ধনসিং রায় বলেন আমি মেয়েটিকে হাত দিয়ে পেটে চিমঠি মেরে ছিলাম তাই তারা আমার বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ তুলেছে। তাছাড়া বিষয়টি প্রধান শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সাহেব সমাধান করে দিয়েছে। 

এ প্রসঙ্গে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোকছুদুর রহমান বলেন বিষয়টি আমি শুনেছি সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা মঞ্জুরুল আলমকে তদন্তের দায়িত্ব দিয়েছি।

এবিএন/মোঃ মোবারক আলী/গালিব/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ