পেকুয়ায় ওয়াক্ফ এস্টেটের জমির বিরোধ নিয়ে নিহত ২

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৮:৪৪

কক্সবাজারের পেকুয়ায় ওয়াক্ফ এস্টেটের জমির আদিপত্য নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে ব্যাপক গোলাগুলি হয়েছে। গুলিতে দুই যুবক নিহত ও আট-দশজন আহত হয়। ঘটনায় জড়িত অভিযোগে মহিলাসহ ১০জনকে আটক করেছে পুলিশ। এসময় পুলিশ জমির আটককৃতদের কাছ থেকে দেশীয় তৈরী সাতটি লম্বা বন্দুক উদ্ধার করে।

আজ শনিবার ২৩ ফেব্রুয়ারি দুপুরে উপজেলার সদর ইউনিয়নের বিলহাচুরা এলাকায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনলেও এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহতরা হলেন- পেকুয়া সদর ইউনিয়নের বিলহাচুরা এলাকার আব্দুর রহমানের ছেলে নেজাম উদ্দিন (৩৫) ও জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে আজিজুল হক (৩৭)। ওইসময় ছররা গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হয় উভয় পক্ষের আট-দশজন। তারা বিভিন্ন হাসপাতাল ও প্রাইভেট ডাক্তারের কাছে চিকিৎসা নিয়েছেন।

ঘটনায় জড়িত অভিযোগে আটককৃতরা হলেন- আব্দুল কাদের (৩৫), মো.ইকবাল (২৫), মো.নুর(৩২), মো.মিজানুর রহমান (২৮), মো.ওসমান গণি (২৪), মো.ইয়াহিয়া (৩৫), মো.শাহাজাহান (৩৮), ছেনুয়ারা বেগম (৩৫), ওয়াহিদুল ইসলাম (২২), দিদারুল ইসলাম (১৮) ও আতাউদ্দিন (১৯)। এরা সবাই পেকুয়ার বাসিন্দা।   

পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের মেডিকেল অফিসার ডা.মো.রুবেল বলেন, দুটি মরদেহ হাসপাতালে আনা হয়েছে। আহত কয়েকজন চিকিৎসা নিতে আসলেও অজানা কারণে তারা চিকিৎসা না নিয়ে চলে যায়। গ্রেপ্তার এড়াতে পালিয়ে অন্যত্র চিকিৎসা নিতে চলে যাওয়ায় তাদের নাম-পরিচয় পাওয়া যায়নি।    

থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো.মিজানুর রহমান বলেন, ওয়াক্ফ এস্টেটের জমির দখল নিয়ে দীর্ঘদিন ধনে বিরোধ চলে আসছিলো। আজ শনিবার আরিফ মেম্বার ও হালিমার লোকজন মুখোমুখি হয়ে প্রথমে বাকবিতান্ডা পরে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এসময় গোলাগুলিও করে তারা। এতে আরিফের পক্ষের নেজাম ও হালিমার পক্ষের আজিজ ঘটনাস্থলে মারা যায়।   

পেকুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জাকির হোসেন ভুঁইয়া নিহতের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, জমির বিরোধ নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে দুইজন মারা যায়। পুলিশ ঘটনায় জড়িত অভিযোগে মহিলাসহ এগারজনকে আটক করেছি, উদ্ধার করা হয় সাতটি বন্দুক। সংঘর্ষে জড়িত অন্যদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।


এবিএন/মুকুল কান্তি দাশ/জসিম/তোহা

এই বিভাগের আরো সংবাদ
well-food