ডোমারে পাচারের হাত থেকে রক্ষা পেল স্কুলছাত্রী

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ৩১ জানুয়ারি ২০১৯, ২১:২৪

ডোমারে পাচারের হাত থেকে অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছে ৭ম শ্রেণির এক ছাত্রী। গতকাল বুধবার রাতে ডোমার রেলওয়ে ষ্টেশনে ঘটনাটি ঘটে।  এ ঘটনায় তিনজনকে আটক করেছে ডোমার থানা পুলিশ।

জানা যায়, নওগাঁ জেলার আরজী নগরের মিলন ইসলামের ৭ম শ্রেণি পড়ুয়া মেয়ের (১৩) সাথে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার সুন্দর খাতা গ্রামের বিপ্লব হোসেনের(২৪)। বিপ্লব হোসেন বিয়ের কথা বলে বুধবার তার প্রেমিকাকে ডোমারে আসতে বলে।

প্রেমিকের কথা শুনে মেয়েটি দুপুরে রপসা এক্সপ্রেস ট্রেনে করে ডোমার ষ্টেশনে নেমে বিপ্লবকে ফোন দেয়। বিপ্লব জানায় সে ঢাকায় চলে এসেছে।  তাকেও ঢাকায় চলে আসার জন্য বলে।

এদিকে মেয়েটিকে ডিমলায় নিয়ে যাওয়ার জন্য তিনজন ছেলেকে ডোমার ষ্টেশনে পাঠায় বিপ্লব। তারা মোবাইল ফোনে ঐ মেয়েটির সাথে কথা বলে তাকে ষ্টেশনে থাকতে বলে। এদিকে মেয়েটি ঢাকার নীল সাগর ট্রেনের টিকিট কাটতে গেলে বুকিং সহকারী হুমায়ুন কবীর তাকে প্রশ্ন করে তুমি কার সাথে ঢাকায় যাবে। তখন মেয়েটি জানায় তার ভাই তার সাথে রয়েছে। সে শান্তাহারে নেমে যাবে। এ কথায় বুকিং সহকারীর সন্দেহ হলে তিনি থানায় খবর দেন।

থানা পুলিশ ষ্টেশনে এসে মেয়েটির সাথে কথা বলে জানতে পারে তার প্রেমিক বিপ্লব তার কাছ থেকে কৌশলে ৪০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে পালিয়ে গেছে। কিছুক্ষন পরেই বিপ্লবের সহযোগীরা মেয়েটিকে ফোন দিয়ে কোথায় আসে জানতে চাইলে পুলিশের কথামত মেয়েটি জানায় সে ডোমার ষ্টেশনে রয়েছে। বিপ্লবের সহযোগীরা ষ্টেশনে এসে মেয়েটিকে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে ওৎ পেতে থাকা পুলিশ সদস্যরা তাদের আটক করে।

আটকরা হলো, ডিমলা উপজেলার উত্তর তিতপাড়া গ্রামের আলহাজ্ব আবুল হোসেনের ছেলে আব্দুল মালেক(২৮),মধ্য সুন্দও খাতা গ্রামের আব্দুল বারেকের ছেলে আবুল কাসেম(২৪) ও ডিমলা সদরের বাবুর হাট এলাকার মুজাই শেখের ছেলে গোলাম আযম(২৪)। ছাত্রীটি জানায় কিছুদিন আগে মোবাইলের মাধ্যমে বিপ্লবের সাথে আমার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। সে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে আমাকে টাকা পয়সা নিয়ে আসতে বললে আমি ডোমারে এসে জানতে পারি সে ঢাকায়। ট্রেনের মধ্যে বিপ্লবের পরিচয়ে এক যুবক তার কাছ থেকে ৪০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়।

ডোমার থানার অফিসার্স ইনচার্জ মোঃ মোকছেদ আলী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত কওে জানান, অপরাধীদের বিরুদ্ধে নওগা থানায় মামলা হবে। নওগা থেকে পুলিশ টিম আসলেই তাদেও হস্তান্তর করা হবে। তিনি বলেন একটি চক্র শিশুদের নানাভাবে প্রলোভনে ফেলে টাকা হাতিয়ে নিয়ে তাদেও সর্বশান্ত করছে।

 এবিএন/আব্দুল্লাহ আল মামুন/জসিম/রাজ্জাক

 

এই বিভাগের আরো সংবাদ
well-food