কয়রায় ‘আঠারোর আগে বিয়ে নয়’ শীর্ষক অভিভাবক সমাবেশ

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৩ জানুয়ারি ২০১৯, ১৬:১৭

ইউএসএআইডি’র ফুড ফর পিস (টাইটেল-২) খাদ্য সহায়তা কার্যক্রমের অর্থায়নে ওয়ার্ল্ড ভিশন নবযাত্রা প্রকল্প অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম, উইনরক ইন্টারন্যাশনাল এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় চলমান বাস্তবায়িত প্রকল্প বাংলাদেশের দক্ষিণ পশ্চিম উপকূলীয় খুলনা জেলার দাকোপ ও কয়রা এবং সাতক্ষীরা জেলার কালিগঞ্জ ও শ্যামনগর উপজেলার ৮,৫৬,১১৬ জন উপকারভোগীর মা ও শিশুস্বাস্থ্য ও পুষ্টি, ওয়াটার ও স্যানিটেশন, কৃষি ও বিকল্প জীবিকায়ন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, নারী-পুরুষ সাম্য, সুশাসন ও সামাজিক দায়বদ্ধতার  উন্নয়নের লক্ষ্যে কাজ করছে।

ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশের এ প্রকল্প স্থানীয় অংশীদার সংস্থা, সুশীলনের সাথে  বাল্য বিবাহ ও জেন্ডার ভিত্তিক নির্যাতন প্রতিরোধ ও নারী পুরুষের সাম্য নিশ্চিত করার জন্য  খুলনা জেলার দাকোপ ও কয়রা এবং সাতক্ষীরা জেলার কালিগঞ্জ ও শ্যামনগর উপজেলায় কাজ করে আসছে। এই কার্যক্রমসমূহের মধ্যে অন্যতম হল বাল্য বিবাহ হ্রাসকরণে প্রচারাভিযান ১৮র আগে বিয়ে নয়।

গতকাল ২২ শে জানুয়ারি সকাল ১০টায়  প্রচারাভিযানের অংশ হিসেবে স্কুল পর্যায়ে বাল্য বিবাহ প্রতিরোধে অভিভাবকদের  সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে উপজেলার চান্নির চক এল সি কলিজিয়েট স্কুল এন্ড কলেজে  অভিভাবক সমাবেশের  আয়োজন করা হয়। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার এস এম সুলতান মাহমুদ।

এ সময় উপস্থিত নবযাত্রা প্রকল্পের জেন্ডার অফিসার জনাব মোঃ আরিফুর রহমান। এছাড়া উপজেলার সকল স্কুলের প্রধান শিক্ষক ও অভিভাবকরা সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন। প্রধান অতিথি মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার তার বক্তব্যে বলেন বাল্য বিবাহের কারণে মেয়ে শিক্ষর্থীরা উচ্চ শিক্ষা থেকে ঝড়ে পড়ছে। বাল্য বিবাহ বন্ধে আমাদের সমন্বিত উদ্যোগ নিতে হবে।

কয়রা উপজেলাকে বাল্য বিবাহ মুক্ত করতে নবযাত্রা প্রকল্প নানা কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এক্ষেত্রে অভিভাবতরা যদি সচেতন না হয় তবে বাল্যবিবাহ নামক সামাজিক ব্যধি থেকে আমরা মুক্তি পাবো না।  সভায় বাল্যবিয়ের কারণ, কুফল এবং উত্তরণের উপায় নিয়ে আলোচনা করেন নবযাত্রা প্রকল্পের জেন্ডার অফিসার মো. আরিফুর রহমান।


এবিএন/শহিদুল্লাহ/জসিম/তোহা

এই বিভাগের আরো সংবাদ