ঝালকাঠিতে গা-ডাকা দিয়েছে চিহ্নিত মাদক সিন্ডিকেট

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৪ মে ২০১৮, ২০:৪২

ঝালকাঠি, ২৪ মে, এবিনিউজ : ঝালকাঠি জেলা পুলিশ ও একটি গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিবেদনে স্থানীয় ১০৬ জন শীর্ষস্থানীয় মাদক ব্যবসায়ীর নাম তালিকা প্রস্তুত করা হলেও একশ্যান শুরুর পূর্বেই বিষয়টি ফাঁস হয়ে যাওয়া  গা-ডাকা দিয়েছে বড়-মাঝারি মাদক ব্যবসায়ী ও সিন্ডিকেট সদস্যরা।

সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে মহা পুলিশ পরিদর্শকসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ব্যাপক তৎপরতার মুখে মাদক প্রতিরোধে ঝালকাঠি জেলা পুলিশও ব্যাপক তৎপর হয়ে উঠলেও তালিকাভূক্ত মাদক ব্যবসায়ীরা নিজেদের আস্তানা ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয় নিয়েছে।

তবে নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র জানায়, জেলার প্রতিটি থানাধীন মাদক ব্যবসায়ীদের একটি তালিকা চুরান্ত করার পর গ্রেফতার শুরুর প্রস্তুতী নিলেও অভিযানের সংবাদ আগেই ছড়িয়ে পরায় সকলেই আত্মগোপনে চলে গেছে।  তাছাড়াও গত কয়েক দিনে সারা দেশে প্রায় ২৫ মাদক ব্যবসায়ী নিহতের খবরেও দেশজুড়ে মাদক ব্যবসায়ী চক্রের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। ক্রসফায়ারের ঘটনার পর ঝালকাঠি মাদকের জোন হিসেবে চিহ্নিত এলাকার অনেক মাদক ব্যবসায়ী লাপাত্তা হয়ে গেছে।

অভিযোগ উঠেছে ঝালকাঠির চিহিৃত কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ীর সাথে কতিপয় অসাধু পুলিশ সদস্যের রফাদফা ও আটক মেসেজগুলো পূর্বেই জানিয়ে দেওয়ায় ঐ সকল মাদক ব্যবসায়ীরা দাপটের সাথেই গোপেগাপে চালিয়ে যাচ্ছে মাদক ব্যবসা। আর এতে যুবসমাজ ধ্বংস হলেও ঐ অসাধু পুলিশ কর্তাদের পকেট ভারী হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

তবে চিহিৃত মাদক সম্রাট অনেককেই এখন আর প্রকাশ্যে দেখা যাচ্ছে না। পুলিশের সার্বক্ষণিক নজরদারি চলছে চিহ্নিত আস্তানা গুলোতে। একই পরিবেশ বিরাজমান শহরের প্রতিটি এলাকায়। আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর কড়াকড়ি আরোপে গোটা ঝালকাঠি অনেকটা মাদক ব্যবসায়ীদের আনাগোনামুক্ত।

একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে, পুলিশ মাদক বিক্রেতার একটি তালিকা সা¤প্রতিকালে প্রণয়ন করে ঢাকা হেডকোয়াটার্সে পাঠায়। ওই তালিকা থেকে সেবীদের বাদ দিয়ে অর্ধ-শত মাদক ব্যবসায়ীকে চিহ্নিত করা হয়েছে। সেই চিহ্নতদের গ্রেফতারে নির্দেশ দেয় হেডকোয়ার্টাস। তবে অন্য একটি গোয়েন্দা সংস্থার তালিকায় রয়েছে ১০৬ মাদক ব্যবসায়ী। ঐ তালিকাটি প্রধানমন্ত্রীসহ বেশ কয়েকটি দপ্তরে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে।

এক্ষেত্রে কেউ কেউ বলছেন- পুলিশের এই ঘোষণা দিয়ে ধরপাকড়ে বিষয়টি আগেই আঁচ করতে পেড়েছে চিহ্নিতরা। ফলে বড় বড় মাদক ব্যবসায়ীরা আগে ভাগেই কেটে পড়েছেন। এখন যাদেরকে গ্রেফতার করা হচ্ছে তারা খুঁচরো বা চুনোপুটি ব্যবসায়ী।

এ ব্যাপারে ঝালকাঠি জেলা পুলিশের কয়েকজন কর্মকর্তার সাথে আলাপকালে জানায়, মাদকের বিরুদ্ধে পুলিশ জিরোটলারেন্স এ রয়েছে। মাদকের সাথে যেই জড়িত থাকুক না কেন পুলিশ কাউকে ছাড় দিবে না। মাদকের বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষণা করেছে পুলিশ। তারই ধারাবাহিকতায় মাদক ব্যবসায়ী কঠোর হস্তে দমনে কাজ করছে পুলিশ বলে এ কর্তারা দাবি করেন।

এবিএন/আজমীর হোসেন তালুকদার/জসিম/এমসি

এই বিভাগের আরো সংবাদ
well-food