চট্টগ্রাম বিভাগে সেরা ৩৯ করদাতাকে সম্মাননা

অর্থনৈতিকভাবে দেশকে সমৃদ্ধশালী করতে করের পরিধি বাড়াতে হবে : মেয়র

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১২ নভেম্বর ২০১৮, ২২:০৩ | আপডেট : ১২ নভেম্বর ২০১৮, ২২:০৮

চট্টগ্রাম মহানগর ও জেলা-সহ কক্সবাজার, বান্দরবান, রাঙামাটি, খাগড়াছড়ির ৩৯ জনকে সেরা করদাতার সম্মাননা দিয়েছে আয়কর বিভাগ।  

আজ সোমবার দুপুরে নগরীর জিইসি কনভেনশন হলে এ সম্মাননা দেওয়া হয়। এবছর সর্বোচ্চ করদাতার ক্যাটাগরিতে সম্মাননা পেয়েছেন- ১৮ জন, সর্বোচ্চ নারী করদাতা ক্যাটাগরিতে- ৬ জন, দীর্ঘ সময়ধরে কর প্রদানকারী ক্যাটাগরিতে ১০ জন এবং ৪০ বছরের নিচে তরুণদের মধ্যে সর্বোচ্চ করদাতা ক্যাটাগরিতে ৫ জন সম্মাননা পেয়েছেন।

অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের কর আপিল ও অব্যাহতি বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সদস্য রওশন আরা আক্তার, কাস্টম এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট চট্টগ্রামের কমিশনার সৈয়দ গোলাম কিবরীয়া ও চট্টগ্রাম চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম, মহিলা চেম্বারের সিনিয়র সহ সভাপতি মিস আবিদা মোস্তফা ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রফেসর এম এ আকাশ।

সভায় সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম কর অঞ্চল ১ এর কর কমিশনার ও মেলার সমন্বয়ক মো. মোজাহের হোসেন। কর কমিশনার হারুন উর রশিদ, নাছিম গণি, মো. ইকবাল হোসেন, লুৎফুল, মো. মাহবুবুর রহমান, সৈয়দ মো. আবু দাউদ প্রমূখ বক্তব্য রাখেন। এছাড়া অনুষ্ঠানে সম্মাননা প্রাপ্তদের মধ্যে তাদের অনুভুতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ঠ শিল্পপতি সালাউদ্দিন কাশেম খান,দিদারুল আলম ও অসিত কুমার সাহা। সম্মাননা প্রাপ্তদের হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র বলেন, অর্থনীতির মূল ভিত্তি হচ্ছে কর। অর্থনৈতিকভাবে দেশকে সমৃদ্ধশালী করতে হলে করের পরিধি বাড়াতে হবে। আয়কর ছাড়া একটি দেশে উন্ন্য়ন সাধিত হয় না। দিন দিন বাজেটের আকার বাড়ছে। বঙ্গবন্ধু ১৯৭২-৭৩ অর্থ বছরে বাজেট দিয়েছিল ৭৮৬ কোটি টাকা। আর সেই বাজেট ২০১৮ -২০১৯  অর্থবছরে ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকা। এই বাজেট তখনই বাস্তবায়িত হবে যদি আমরা সকলে মিলে কর পরিশোধ করি।

তিনি বলেন প্রধানমন্ত্রী সারাদেশে বিভিন্ন সাহায্য সহযোগিতা দিচ্ছেন, সামাজিক নিরাপত্তা দিচ্ছেন। এই সহযোগিতা, নিরাপত্তার জন্য টাকা দিচ্ছেন। এই টাকা সবই করদাতাদের দেয়া টাকা। এই প্রসংগে কর আদায়ে সহনশীলতা হওয়ার জন্য আয়কর বিভাগকে পরামর্শ দিয়ে মেয়র বলেন আয়কর সেবাকে যেন আরো বন্ধু সুলভ করা হয়। এতে করে আরো বেশি সংখ্যক মানুষকে আয় করের আওতায় আনা সম্ভব হবে।

তিনি বলেন, করদাতাদের সম্মাননা দিয়ে কর বিভাগ এক অন্যান্য দৃষ্ঠান্ত স্থাপন করেছে। এতে করে অন্যরা অনুপ্রাণিত হবে,সচেতনাতা সৃষ্ঠি হবে। তাই বেশী বেশী করে করমেলা আয়োজনের পরামর্শ দেন মেয়র।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম চেম্বারের সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, কর আদায়কারী সরকারি কর্মকর্তাদের সাথে ব্যবসায়িদের দুরত্ব কমায় এখন ভ্যাট-ট্যাক্স দিতে আগ্রহী হয়েছে। তিনি মনে করেন করদাতার সংখ্যা এবং আওতা আরো বৃদ্ধি পাবে যদি কর দেওয়ার প্রক্রিয়া আরও সহজ করা এবং করদাতা ব্যবসায়ীদের রাষ্ট্রীয়ভাবে উৎসাহিত ও সম্মানিত করলে।

এবছর সম্মাননা প্রাপ্ত ও করদাতা হলেন যারা : সিটি কর্পোরেশন এলাকায় সর্বোচ্চ কর প্রদানকারী হয়েছেন তিনজন। এরা হলেন, এ কে খান গ্রুপের সালাউদ্দিন কাশেম খান (বৃহৎ করদাতা ইউনিট), মো. কামাল ও বিএসআরএম এর আলী হোসেন আকবর আলী।

এছাড়া দীর্ঘমেয়াদী কর প্রদানকারী দুজন হলেন আবদুল মোতালেব, এসএএম শাহ সর্বোচ্চ তরুণ পুরষ (৪০ বছর বয়সের নীচে) সর্বোচ্চ কর প্রদানকারী মো. শাহাদাত হোসেন। চট্টগ্রামে দীর্ঘমেয়াদী কর প্রদানকারী দু’জন হলেন বিশ্বেশ্বর গুপ্ত ও সদরে আলী (সর্বোচ্চ করপ্রদানকারী তিনজন হলেন : অসিত কুমার সাহা, দিদারুল আলম ও মোহাম্মদ আব্দুল মালেক। সর্বোচ্চ কর প্রদানকারী মহিলা করদাতা হলেন রূপালী হক চৌধুরী। তরুণ পুরুষ সর্বোচ্চ কর প্রদানকারী আশিকুর রহমান লস্কর।

কক্সবাজারে দীর্ঘমেয়াদী কর প্রদানকারী দুজন হলেন : ওসমান গনি, হাফিজুল ইসলাম। সর্বোচ্চ তিন করদাতা হলেন : মিস কামরুন নাহার, মোহাম্মদ আবু কাউসার ও প্রকৌশলী মোহাম্মদ আমলগীর। সর্বোচ্চ কর প্রদানকারী মহিলা করদাতা লাইলা বেগম। সর্বোচ্চ ৪০ বছর বয়সের নিচে তরুণ পুরুষ সর্বোচ্চ করা প্রদানকারী আবদুল মাবুদ চৌধুরী।

রাঙামাটি জেলার দীর্ঘমেয়াদী কর প্রদানকারী দুজন হলেন : রবীন্দ্র লাল দে ও মাধব নাগ। সর্বোচ্চ কর প্রদানকারী তিনজন হলেন লোকমান হোসেন তালুকদার, আবুল মনসুর ওবায়দৌল্লা ও সুলতান কামরুদ্দীন। সর্বোচ্চ করপ্রদানকারী মহিলা করদাতা মিস চিত্রা চাকমা এবং তরুন পুরষ সর্বোচ্চ করদাতা হলেন মো. আসাদুজ্জামান মহিসন।

বান্দরবানের সর্বোচ্চ কর প্রদানকারী তিনজন হলেন মোহাম্মদ নুরুল আবছার, অমল কান্তি দাশ ও মাহবুবুর রহমান। সর্বোচ্চ করা প্রদানকারী মহিলা করদাতা মিস মে হ্লা প্রু।
খাগড়াছড়িতে দীর্ঘমেয়াদি দু’জন করদাতা হলেন: স্বপন চন্দ্র দেবনাথ ও মো. শামসুল আলম।

সর্বোচ্চ কর প্রদানকারী তিনজন হলেন: মিস ফরিদা আক্তার, স্বপন চন্দ্র দেবনাথ ও শিব শংকর দেব। সর্বোচ্চ কর প্রদানকারী মহিলা করদাতা হলেন: মিস নুর নাহার বেগম। তরুন পুরুষ সর্বোচ্চ করদাতা হলেন: মো. আবুল কালাম।

এবিএন/রাজীব সেন প্রিন্স/জসিম/রাজ্জাক

এই বিভাগের আরো সংবাদ