পটিয়ার আজিমপুরে ঝুকিপূর্ণ সেতু, দূর্ঘটনার আশংকা

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২২ অক্টোবর ২০১৮, ২১:১৯

পটিয়া উপজেলার কচুয়াই ইউনিয়নের আজিমপুর গ্রামের গুরুত্বপূর্ণ একটি সেতুর গোড়ার মাটি সরে গিয়ে ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে।  যে কোনো মুহুর্তে বড় ধরণের দূর্ঘটনার আশংকা করেছে স্থানীয়রা।  খরনা খালের উপর এ সেতু যেন এখন মরণফাঁদ। এলাকার কয়েকশ পরিবারের মানুষ ঝুকির মধ্যে যাতায়ত করছে।

গত কয়েক বছর আগে বর্ষা মৌসুমে পাহাড়ী ঢলের স্রোতে সেতুর পশ্চিম পাড়ের মাটি সরে গিয়ে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। যার কারণে ঐ এলাকার ‘রাম হরিদাস’ সড়ক দিয়ে সকল প্রকার গাড়ী চলাচল বন্ধ রয়েচে। এলাকার লোকজন বিষয়টি কচুয়াই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে অবহিত করেছেন।  খরনা চেয়ারম্যান ঘাটার পশ্চিম দিকে যাওয়া ‘রাম হরিদাস’ সড়কের শেষ মাথায় এ সেতু।

সরেজমিনে দেখা যায়, এলাকার লোকজন ছাড়াও স্কুল, কলেজের শিক্ষার্থীরা প্রতিদিন পায়ে হেটে ঝুকি নিয়ে যাতায়াত করছে।  ২০০৫ সালে খরনা খালের উপর সেতু নির্মাণের পর গাড়ী চলাচল করলেও গত এক বছরে সেতুর সংযোগ সড় ভেঙ্গে বিলীন হয়ে পড়ায় যোগাযোগ বিচ্ছিন রয়েছে।  এ সড়কের সঙ্গে পটিয়া-চন্দনাইশ-বৈলতলী মূল সড়কের সঙ্গে সংযুক্ত।  ‘রাম হরিদাস’ সড়ক দিয়ে আজিমপুর উচ্চ বিদ্যালয়, পূর্ব আজিমপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, মুজাফ্ফরাবাদ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, যশোদ নগেন্দ্রী মহিলা ডিগ্রী কলেজ ও বিজিসি ট্রাস্ট ইউনিভার্সিটিতে এলাকার শিক্ষার্থীরা ঝুকিপূর্ণ এ সেতু দিয়ে যাতায়ত করে থাকে।  গেল বর্ষা মৌসুমের আগে সেতুর সঙ্গে সংযোগ সড়ক নির্মিত হয়। বর্তমানে তা বেহাল অবস্থা।  

এ ব্যাপারে কচুয়াই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এস এম ইনজামুল হক জসিম সাংবাদিকদের জানান, ‘রাম হরিদাস’ সড়কের মাঝামাঝিতে খরনা খালে উপর সেতু রয়েছে তা অত্যন্ত ঝুকিপূর্ণ। ইতি মধ্যে স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদপ্তর এলজিইডি’কে অবিহিত করা হয়েছে বলে জানান।

স্থানয়ি বাসিন্দা কাজী আকবর হোসেন জানান, গত এক বছর পর্যন্ত এ সেতুটি ঝুকিপূর্ণ হলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন না করায় তাঁদের জীবনের ঝুকি নিয়ে পারাপার করতে হচ্ছে। তিনি এ ব্যাপারে সেতুটি দ্রুত নির্মানের জন্য দাবী জানান।

এবিএন/সেলিম চৌধুরী/জসিম/রাজ্জাক

এই বিভাগের আরো সংবাদ