আজকের শিরোনাম :

সুনামগঞ্জে হাসপাতালে চিকিৎসা না পেয়ে রাস্তায় বাচ্চা প্রসব : এলাকায় তোলপাড়

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ২৩ জুলাই ২০২১, ১৬:১৩

সুনামগঞ্জে এক প্রসূতি নারী হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসা না পেয়ে অবশেষে রাস্তায় বাচ্চা প্রসব করেছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। আর এই ঘটনাটি তাৎক্ষনিক ভাবে জানাজানি হওয়ার পর থেকে পুরো জেলা জুড়ে শুরু হয়েছে তোলপাড়। চিকিৎসা বঞ্চিত ওই নারীর নাম- রেসমিনা বেগম (২৫)। তিনি জেলার দিরাই উপজেলার ভাটিপাড়া ইউনিয়নের ডুলকর গ্রামের রেস্তোরা শ্রমিক রুবেল মিয়ার স্ত্রী। আর এঘটনাটি ঘঠেছে গতকাল বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) দুপুরে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে- গরীর ও অসহায় রেস্তোরা শ্রমিক রুবেল মিয়ার স্ত্রী রেসমিনা বেগমের প্রবস ব্যাথা শুরু হলে তাকে জেলার দিরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। পরে জরুরী বিভাগের দায়িত্বে থাকা চিকিৎসকরা প্রসূতি রেসমিনা বেগমকে হাসপাতালে ভর্তি না করে সিলেট নিয়ে যেতে বলেন। এমতাবস্থায় প্রসূতি স্ত্রীকে নিয়ে মহাবিপদে পড়ে যায় শ্রমিক রুবেল মিয়া। সিলেট নিয়ে যাওয়ার সমার্থ নাই এজন্য চিকিৎকরদেরকে অনেক অনুরোধ করাসহ তাদের হাতে পায়ে ধরে রুবেল মিয়া। তারপরও কেউ তার স্ত্রীকে হাসপাতালে ভর্তি করতে রাজি হয়নি।

 অবশেষে কোন উপায় না পেয়ে এ্যাম্বুলেন্স খোঁজার জন্য স্ত্রীকে সাথে নিয়ে হাসপাতালের বাহিরে যায়। ওই সময় প্রসূতি রেসমিনার প্রচন্ড ব্যাথা শুরু হলে তাকে হাসপাতালের পাশে অবস্থিত দিরাই নির্বাচন অফিসের রাস্তার পাশে নিয়ে স্থানীয় কয়েকজন নারীর সহযোগীতায় ফুটফুটে কন্যা সন্তান প্রসব করানো হয়। পরে মা ও নবজাতক শিশুকন্যাকে নির্বাচন অফিসের বারান্দায় নিয়ে রাখা হয়।

এব্যাপারে ভুক্তভোগী রুবেল মিয়া ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন- টাকার জন্য আমার স্ত্রীকে ওরা হাসপাতালে ভর্তি করেনি। আমি গরীব বলে কি স্বাস্থ্য সেবা পাওয়ার কোন অধিকার আমার নাই। আমার প্রথম সন্তান এভাবে জন্ম নেবে আমি কোনদিন ভাবিনি।

এব্যাপারে দিরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ বিদ্যুৎ রঞ্জন দাস সাংবাদিকদের বলেন- রেসমিনা নামের কোন প্রসূতি মা হাসপাতালে এসেছিলেন বলে আমার জানা নেই। আসলে অবশ্যই সেবা দেওয়া হতো।    

 
এবিএন/মোজাম্মেল আলম/জসিম/তোহা

এই বিভাগের আরো সংবাদ