নাসিরনগরে নৌকা ডুবে ২ শিশুর প্রাণহানি

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৮:১৫

গতকাল ০৩রা সেপ্টেম্বর সোমবার বিকেল ৫ ঘটিকার সময় ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার মিনি কক্সবাজার নামে খ্যাত ধরন্তি থেকে বড়নগর গ্রামের ইছাপুরের পাগলা মাঝির নৌকা অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই করে তেলিকান্দি,ধানতলিয়া, ইছাপুর,ফুলখারকান্দি,বড়নগর ও কচুয়ার উদ্দেশ্যে যাত্রা করে।

নৌকা ডুবিতে চাতলপাড় ইউ/পির ফুলকার কান্দি গ্রামের গুলজার মিয়ার ছেলে আলভী (৭) ও নাসিরনগর সদর ইউ/পির কুলিকুন্ডা গ্রামের সরাজ মিয়ার ছেলে ইমতিয়াজ মিয়া (৫) এর লাশ উদ্বার করা হয়েছে বলে পুলিশ সুত্রে জানা গেছে।

অতিরিক্ত যাত্রী বহনের ফলে ধানতলিয়ার, হাসিমপুর ও তেলিকান্দি মোড়ে প্রচন্ড স্রোতে প্রায় ১৫০জন যাত্রী সহ বিকাল অনুমান সোয়া ৫ ঘটিকার সময় ডুবে যায় যাত্রীবাহী  এ নৌাকা।
নৌকাডুবিতে ডুবন্ত  বেশ কয়জনকে  আশংকাজনক অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।  

ধানতলিয়া, হাসিমপুর, ও তেলিকান্দির গ্রাম বাসির সহযোগীতায় উদ্ধার করে ৬/৮ জনকে জরুরী অবস্থায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।


এছাড়াও নৌকা ডুবিতে একটি গরু মারা গেছে বলে লোকমুখে জানা গেছে।
নৌকা ডুবির প্রায় ৪০ মিনিট পর জাল দিয়ে একজনকে উদ্ধার করা হয়। এই ভয়াবহ নৌকা ডুবির ঘটনায় অঞ্চল গুলোতে শোকের ছায়া দেখা দেয়।

নৌকার এক যাত্রী জানায় নৌকার উপরে তুলনামূলক বেশি যাত্রী সহ ১১ বান টিন ছিলো। যাত্রী বেশী ও ভারী ওজনের মালামাল সামগ্রী থাকায় নৌকাটি নদীর স্রোতে নিমজ্জিত হয় এবং এই কারনেই নৌকা ডুবির দুর্ঘটনা ঘটে। নৌকা ডুবিতে দুই শিশুর লাশ উদ্বার করেছে পুলিশ।চাতলপাড় তদন্ত কেন্দ্রের এস আই মোঃ জুলুস খান পাঠান এর সত্যতা স্বীকার করেছেন।

আজ ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ রোজ মঙ্গলবার নাসিরনগর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এটিএম মনিরুজ্জামান সরকার ও নাসিরনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসউদ পারভেজ মজুমদার, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি ডাঃ রাফি উদ্দিন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি অঞ্জন কুমার দেব, মহিলা ভাইসচেয়াম্যান সৈয়দা হামিদা লতিফ পান্না ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে নিহতদের পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। এ সময় দুই পরিবারকে উপজেলা পরিষদ থেকে ২০ হাজার ও উপজেলা  নির্বাহী কর্মকর্তার ত্রাণ তহবিল থেকে ৩০ হাজার টাকা প্রদান করা হয়।  

 

এবিএন/আব্দুল হান্নান/জসিম/তোহা

এই বিভাগের আরো সংবাদ