ত্রিশালে মুক্তিযোদ্ধাকে হত্যার বিচারের দাবীতে এলাকাবাসীর মানববন্ধন

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৫:০৯

ময়মনসিংহের ত্রিশালে মুক্তিযোদ্ধা ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি আব্দুল মতিন মাস্টার (৬৫) হত্যাকাণ্ডের জড়িতদের দ্রুত বিচারের দাবীতে ও অভিযুক্ত পলাতক আসামীদের গ্রেফতার দাবীতে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী ।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে  ত্রিশালের আমিরাবাড়ী এলাকায় ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে দুই পাশে অবস্থান নিয়ে মানববন্ধন করে ।

মানববন্ধনে বক্তারা অবিলম্বে মূল আসামীসহ দোষীদের গ্রেফতার করে দ্রুত বিচারে আওতায় আনার দাবী জানান ।

সেই সাথে বিচার প্রক্রিয়া বিলম্ব হলে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধসহ কঠোর আন্দোলনের হুমকি দেন।

মানববন্ধনে ত্রিশালের সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ হাফেজ রুহুল আমীন মাদানী, সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক আব্দুল মতিন,জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এড.জালাল উদ্দিন, মুক্তিযোদ্ধা ডেপুটি কমান্ডার কামাল পাশা, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আহাম্মদ আলী, উপজেলা যুবলীগ সভাপতি জুয়েল সরকার,ছাত্রলীগ সভাপতি হাসান মাহমুদসহ অন্যান্যরা বক্তব্য রাখেন ।

উল্লেখ্য,গত ৩ জুলাই বাড়ির পাশে নিজ মৎস খামারের ভেতর খুন হন মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতিন মাস্টার। ত্রিশাল থানা পুলিশ ওই দিন সকালে খাঘাটি গ্রামের বাড়ির পাশের পুকুর থেকে তার গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করে। পরে পরিবারের পক্ষে তার ছেলে মাহমুদুল হাসান মামুন বাদী হয়ে অজ্ঞাতদের আসামি করে ত্রিশাল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

ত্রিশাল থানা পুলিশ ও জেলা গোয়েন্দা পুলিশ মামলাটি তদন্ত করে কোনও কুলকিনারা না পাওয়ায় আদালতের নির্দেশে গত ১৩ আগস্ট মামলার তদন্তের দায়িত্ব পায় পিবিআই। পরে এক সপ্তাহের মধ্যে পিবিআই ত্রিশালের নারায়ণপুরের আবু বকর ছিদ্দিকের ছেলে মোফাজ্জল হোসেন রুবেল (৩০), চাঁন মিয়ার ছেলে সেলিম ডাকাত (৪০), ইমান আলীর ছেলে ইদ্রিস আলী (৪০), তোফাজ্জল হোসেনের ছেলে সোহাগ মিয়া (২৬) ও খাঘাটি গ্রামের দুলাল মিয়াকে (৪৫) গ্রেপ্তার করা হয়।

তাদের দেয়া তথ্যমতে বৃহস্পতিবার রাতে সেলিম ডাকাতের বাড়ি থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত চাইনিজ কুড়ালসহ অপর একটি দেশিয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়।

গ্রেপ্তার হওয়া ইদ্রিস ২৩ আগস্ট ও সোহাগ ২৮ আগস্ট আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে।


এবিএন/মঈন উদ্দিন রায়হান/জসিম/তোহা

এই বিভাগের আরো সংবাদ