সাপাহারে বাল্যবিয়ের হাত থেকে রক্ষা পেল শিক্ষার্থী

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:২৭

নওগাঁর সাপাহার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শামসুল আলম শাহ্র কারণে বাল্যবিয়ের হাত থেকে রক্ষা পেল রাব্বীনা খাতুন (১৫) নামের এক শিক্ষার্থী। উপজেলার তিলনা ইউনিয়নের সুন্দুরা গ্রামের রাব্বানীর মেয়ে রাব্বীনা খাতুন।

জানা গেছে, আজ ০৩ সেপ্টেম্বর (সোমবার) রাব্বাীনা খাতুনের সাথে নওগাঁ জেলা সদরের কোন এক যুবকের সাথে বিয়ের দিন তারিখ ধার্য হয়। সোমবার ছিল তাঁদের বিয়ের দিন।

খবর পেয়ে দুপুরের দিকে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শামসুল আলম শাহ্ ফোর্সসহ বিবাহস্থলে গিয়ে অবিভাভকদের বাল্যবিয়ের কুফল সম্পর্কে সচেতন করলে রাব্বীনার অবিভাবকরা বিয়ে বন্ধ করে দেন এবং তাঁদের মেয়ের ১৮ বছর পূর্ন না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দেবন না মর্মে ওসি’কে প্রতিশ্রুতিদেন।

এসময় ওসি শামসুল আলম শাহ্ রাব্বীনার মা-বাবা, অভিভাবক সহ এলাকাবাসীর উদ্দেশ্যে বলেন,  কম বয়সী ছেলে-মেয়েদের মধ্যে বাল্যবিবাহের কাজ সম্পন্ন হলে পবিত্র কোরআনে যে শাস্তি ও সুষমার কথা বলা, তা বিপর্যস্ত হতে পারে।

আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেছেন, ‘তিনিই তোমাদের এক প্রাণ থেকে সৃষ্টি করেছেন এবং তার থেকে তার সঙ্গিনীকে সৃষ্টি করেন, যেন তার কাছ থেকে পায় শান্তি ও সুখময় বসবাস।’ (সূরা আল-আরাফ, আয়াত: ১৮৯)।

তবে বিবাহ-সম্পর্কিত পবিত্র কোরআনের আয়াত, হাদিস ও আইন সামনে রেখে জীবনের কঠিন বাস্তবতার আঙ্গিকে বিশ্লেষণ করে বাল্যবিবাহের কুফল সম্পর্কে সচেতন করেন সবাইকে।

এবিএন/নয়ন বাবু/জসিম/এমসি

এই বিভাগের আরো সংবাদ