টাঙ্গাইলে চলন্ত বাসে ‘দলবেঁধে ধর্ষণ’ : আটক ১

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০:৪৭

টাঙ্গাইলে চলন্ত বাসে চালক-শ্রমিক কর্তৃক মানসিক ভারসাম্যহীন এক তরুণীকে গণধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে।

বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব পাড়ের রেলস্টেশন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। 

এ ঘটনায় বাসের চালকের সহকারী নাজমুলকে (২২) গ্রেজশার করেছে পুলিশ। গ্রেজশারকৃত নাজমুল টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার ৩নং পুনর্বাসন এলাকার আতোয়ার রহমানের ছেলে।

বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর মোশারফ হোসেন শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টায় জানান, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে টাঙ্গাইল থেকে ছেড়ে আসা টাঙ্গাইল-যমুনা সেতু পরিবহনের একটি বাস বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব পাড়ের বাসস্ট্যান্ডে যাচ্ছিল। রাতের বেলা হওয়ায় বাসে যাত্রী কম ছিল। এ ছাড়া যাত্রীরা সবাই বাসস্ট্যান্ডের পূর্বেই তাদের গন্তব্যে নেমে গিয়েছিল। এ সময় বাসে মানসিক ভারসাম্যহীন ওই তরুণী একা থাকার সুযোগে বাসের চালক ও সহকারীরা বাসটিকে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্বপাড়ের রেলস্টেশনের পাশের ফাঁকা জায়গায় নিয়ে যায়। পরে বাসের চালক আলম মেয়েটিকে বাসেই ধর্ষণ করে। এ সময় তার সহকারী নাজমুল ও সুপারভাইজার বিষু বাইরে পাহারা দিচ্ছিল। পরে তারাও মেয়েটির ওপর নির্যাতন চালায়। এ সময় মেয়েটির চিৎকারে স্টেশনে দায়িত্বরত নাইটগার্ড বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার টহলরত পুলিশকে জানালে তারা ঘটনাস্থল থেকে মেয়েটিকে উদ্ধার ও বাস চালকের সহকারী নাজমুলকে গ্রেপ্তার করে। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে বাসের চালক আলম ও সুপারভাইজার বিষু পালিয়ে যায়। তাদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান চলছে।

উদ্ধারকৃত মেয়েটি তার পরিচয় বলতে পারছে না। তবে প্রাথমিকভাবে তার নাম রানু বলে জানা গেছে। তাকে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পুলিশি হেফাজতে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। 

এ ঘটনায় বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার এসআই নূরে আলম বাদী হয়ে বাসের চালক, তার সহকারী ও সুপারভাইজারকে আসামি করে মামলা করেছেন। পুলিশ বাসটি জব্দ করেছে।

এর আগে টাঙ্গাইলের মধুপুরে গত বছর চলন্ত বাসে সিরাজগঞ্জের এক তরুণীকে দলবেঁধে ধর্ষণ শেষে হত্যা এবং তারও এক বছর আগে মধুপুরে চলন্ত বাসে আরেক তরুণীকে দলবেঁধে ধর্ষণের ঘটনা ঘটে।

এবিএন/সাদিক/জসিম

এই বিভাগের আরো সংবাদ