গরুর জায়গা দখল করেছে বাঁশ

চিতলমারীতে জমেনি কোরবানীর পশুর বাজার

  অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ১৬ আগস্ট ২০১৮, ১৮:০৯

বাগেরহাট, ১৬ আগস্ট, এবিনিউজ : ‘গরুর জায়গা দখল করেছে বাঁশ। তাই দু’শ বছরের ঐতিহ্য হারিয়ে এ গোহাটটি এখন পৌড়। এক সময় এটি দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের অন্যতম গরুর হাট ছিল। দেশের বিভিন্ন এলাকার ব্যবসায়ীরা গরু বেঁচা-কেনা করতে ছুটে আসতেন এখানে। কিন্তু সময়ের বিবর্তন ও নানা কারণে গুরুত্বপূর্ণ এ গোহাটটি অচল হতে বসেছে।’ আজ বৃহস্পতিবার (১৬ আগস্ট) দুপুরে বাগেরহাটের ঐতিহ্যবাহী চিতলমারী গরু-ছাগলের হাটের এক কোণে বসে এমনটাই জানালেন এক সময়ের বিশিষ্ট কয়েকজন গরুর ব্যবসায়ী।

তারা আরও জানান, ব্রিটিশ আমল থেকে চিতলমারী গরুর হাটের একটি আলাদা নাম-ডাক ছিল। সুনামের কারণে দূর-দূরান্ত থেকে বিক্রেতা, ক্রেতা ও ব্যপারীরা এ হাটে ছুটে আসতেন ব্যবসায়ের উদ্দেশ্যে। নিরাপত্তা ও সুনাম ছিল এ হাটের। কিন্তু কালক্রমে এ হাটের ভাটা পড়তে থাকে। আস্তে আস্তে বিলীন হতে থাকে এর সুনাম ও ছোট হেতে থাকে হাটের সীমানা। দিনে দিনে দখল হয়ে গেছে হাটের অধিকাংশ জায়গা। যেটুকও আছে সেটুক দখল করে আছে বাঁশের হাটের বাঁশ। তাই দেশের বিভিন্ন জায়গায় কোরবানি উপলক্ষে পশুর কেনা-বেঁচা শুরু হলেও এবার জমেনি ঐতিহ্যবাহী চিতলমারী গরুর হাট। তাই দু’শ বছরের ঐতিহ্য হারিয়ে এ গোহাটটি এখন পৌড় আকার ধারণ করেছে।

চিতলমারীর এক সময়রে নামকরা গরুর ব্যবসায়ী লায়েক আলী ফকির, হোসেন মল্লিক, কেরামত শেখ, অহিদ ফরাজী ও আফজাল মাঝি জানান, তাদের সময় কুরবানির এক মাস আগে থেকেই বেঁচা-বিক্রি শুরু হয়ে যেত। দিন যত ঘনিয়ে আসত পশুর হাট তত জমজমাট হত।

এ ব্যাপারে বর্তমান প্রজম্মের গরু ব্যবসায়ী রেফাজুল খান, কচি সরদার, ফায়জুল শেখ, জাফর শেখ ও আবু সাঈদ ফকির জানান, প্রতি বছরই তারা কুরবানির আগে বিভিন্ন জাত, রং ও সাইজের গরু দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আমদানি করে থাকেন। তবেকেন জানি এ বছর বাজার একটু মন্দা যাচ্ছে। সামনে ভাল হতে পারে বলেও তারা আশা ব্যক্ত করেছেন।

চিতলমারী হাট-বাজারের ইজারাদার মোঃ নজরুল ইসলাম জানান, গরু হাটের অর্ধেকটা জুড়ে বাঁশ হাট বসেছে। এছাড়া কতিপয় ব্যাক্তি হাট দখল করে পাঁকা ইমারত নির্মান করায় গোহাটের পরিধি একেবারে ছোট হয়ে গেছে। তাই দূর-দূরান্তথেকে মানুষ এখন আর এ হাটে আসতে চায় না। তবে বাঁশ হাটের খাজনা আদায়কারী শেখ আনিসুর রহমান জানান, সাড়ে তিন লাখ টাকা দিয়ে তিনি বাঁশ হাটের ডাক নিয়েছেন। কমিটির পক্ষথেকে বাঁশ বিক্রির জন্য তাকে ওই জায়গা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে।

এবিএন/এস.এস সাগর/জসিম/রাজ্জাক

এই বিভাগের আরো সংবাদ