খালেদা জিয়া ফেনী-১ আসনের সংসদ সদস্য!

খালেদা জিয়া ফেনী-১ আসনের সংসদ সদস্য!
ফেনী, ১৭ মে, এবিনিউজ : সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া এখনো ফেনী-১ আসনের সংসদ সদস্য! আশ্চর্য্য হলেও সত্য ফেনী জেলার সরকারী ওয়েব পোটালে এমন তথ্য উল্লেখ রয়েছে। এ যেন ডিজিটাল সরকারের স্থানীয় এনালগ ব্যাবস্থা। ডিজিটাল সরকারের জাতীয় ও স্থানীয় পর্যায়ের কোন কিছুর উল্লেখ নেই জেলার সরকারী ওয়েব পোটালে। জেলার সরকারী ওয়েব পোটালটি পর্যালোচনা করে দেখা যায়, ২০১৪ সালের পর কোন তথ্য আপডেট করা হয়নি। অথচ ১৩ মে ঘটা করে চট্রগ্রামের বিভাগিয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসক জিডিটাল মেলার উদ্বোধন করেন। সরকারী ওয়েব পোটালের তথ্য হালনাগাদ না করাটা চরম দায়িত্বহীনতার মধ্যে পড়ে বলে মনে করেন সচেতন ফেনীবাসি।
ফেনী জেলার সরকারী ওয়েব পোটাল চার্জ করলে যথাক্রমে ফেনী বাংলাদেশ ফেইসবুক প্রতিক, ফেনী জেলা পরিষদ, প্রয়োজনীয় ওয়েব সাইট, ফেনী জেলার উইকিপিড়িয়া, ফেনী জেলার ইনফরমেশন নামের পোটালগুলো দেখা যায়। তার মধ্যে ফেনী জেলার ইনফরমেশন পোটালে ক্লিক করলে সংসদ সদস্য হিসেবে জাতীয় সংসদের ২৬৫ নং আসন ফেনী-১ খালেদা জিয়া, ২৬৬ নং আসন ফেনী-২ জয়নাল আবদিন, ২৬৭ নং আসন ফেনী-৩ মোশারফ হোসেনের নাম রয়েছে। কিন্তু ২০১৪ সালে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সরকারীভাবে নির্বাচিত সংসদ সদস্যরা হলেন, যথাক্রমে শিরিন আক্তার,নিজাম উদ্দিন হাজারী,হাজী রহিম উল্যাহ। সরকারী ওয়েব পোটালের সংসদ সদস্য মোশারফ হোসেন ইতিমধ্যে মৃত্যুবরন করলেও তার ও কোন তথ্য উল্লেখ নেই।
দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২০ দলীয় জোট নির্বাচনে অংশগ্রহন না করাতে খালেদা জিয়া বিরোধী দলের প্রধানের মর্যদা টুকু হারালেও সরকারী ওয়েব পোটালে সংসদ সদস্য হিসেবে বহাল তবিয়তে থাকা ডিজিটাল সরকারের স্থানীয় কর্মকর্তাদের রাষ্ট্রিয় কাজের চরম অবহেলার জ্বলন্ত উদাহরন সৃষ্টি হল। এ ব্যাপারে সরকারী ওয়েব পোটাল পরিচালনায় দায়িত্বপ্রাপ্ত সংশ্লিষ্ট ব্যাক্তি ও জেলা প্রশাসক কার্য্যালয়ে যোগাযোগ করেও কারো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

এবিএন/রবি-২য়/আবুল হোসেন রিপন/মুস্তাফিজ/ফাতেমা