বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ৯ ফাল্গুন ১৪২৫
logo
feb18  

‘রান মেশিন’ তুষারের আরেকটি সেঞ্চুরি, ইমরুলের ১১৮

‘রান মেশিন’ তুষারের আরেকটি সেঞ্চুরি, ইমরুলের ১১৮

ঢাকা, ২৩ জানুয়ারি, এবিনিউজ : নিজেকে যেন রান মেশিন বানিয়ে ফেলেছেন তুষার ইমরান। ফার্স্ট ক্লাস ক্রিকেট মানেই এখন তার রানের বন্যা। ক'দিন আগেই প্রথম বাংলাদেশী ক্রিকেটার হিসেবে ১০ হাজারী ক্লাবে ঢুকেছেন। আর বাংলাদেশিদের মধ্যে সর্বাধিক সেঞ্চুরির রেকর্ডটা তো গত আসরেই করেছেন। মঙ্গলবার দ্বিতীয় রাউন্ডের তৃতীয় দিনে প্রাইম ব্যাংক দক্ষিণাঞ্চলের হয়ে আরও একটি সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে অপরাজিত আছেন এ ব্যাটসম্যান। তার সঙ্গে সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন ইমরুল কায়েসও। ফলে বিসিবি উত্তরাঞ্চলের বিপক্ষে লিড নিতে পেরেছে দলটি। আর খুলনায় ইসলামী ব্যাংক পূর্বাঞ্চলের বিপক্ষে লড়াই করছে ওয়ালটন মধ্যাঞ্চল।

আগের দিনের ২ উইকেটে ১২৫ রান নিয়ে ব্যাট করতে নামে দক্ষিণাঞ্চল। জাতীয় দল থেকে বাদ পড়ার পর এ ম্যাচটি বিশেষ কিছুই ছিলো ইমরুল কায়েসের জন্য। ব্যাটে জবাব দেওয়ার ব্যপারটা বেশ গুরুত্বের সঙ্গেই নিয়েছেন। করেও দেখালেন। রাজশাহীর শহীদ কামরুজ্জামান স্টেডিয়ামে ১১৮ রানের ইনিংস খেলার পর আউট হন ইমরুল। ওয়ানডে স্টাইলে ব্যাট করে ১৩১ বলে ১৪টি চার ও ৪ ছক্কায় নিজের ইনিংস সাজান তিনি।

সেঞ্চুরি তুলে নেন আগের দিনের আরেক অপরাজিত ব্যাটসম্যান তুষারও। ২৯১ বলে ১৬টি চারের সাহায্যে ১৪৮ রান করে এখনও অপরাজিত আছেন তিনি। সেঞ্চুরিকে ডাবলে পরিণত করার সুযোগও রয়েছে তার। ইমরুলের সঙ্গে তৃতীয় উইকেটে ১৪৩ রানের জুটি গড়েন ঘরোয়া ক্রিকেটের নিয়মিত এ পারফর্মার। তবে এদিন ব্যর্থ হয়েছেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। ব্যক্তিগত ৮ রানেই শুভাশিস রায়ের শিকার হন তিনি। এছাড়া আল-আমিন জুনিয়র ৪৬ ও নুরুল হাসান সোহান ৩৫ রান করেছেন। বিসিবি উত্তরাঞ্চলের পক্ষে ৩টি করে উইকেট নিয়েছেন শফিউল ইসলাম ও তাইজুল ইসলাম।‘রান মেশিন’ তুষারের আরেকটি সেঞ্চুরি, ইমরুলের ১১৮

খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে ফলো অন এড়াতে লড়াই করছে মধ্যাঞ্চল। আগের দিনের ১ উইকেটে ৪০ নিয়ে ব্যাট করতে নামা দলটি এদিন ৭ উইকেটে ৩৫২ রান করে দিন শেষ করেছে। যদিও দিনের শুরুটা ভালো হয়নি তাদের। দলীয় ৯৫ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় তারা। তবে চতুর্থ উইকেটে ৯৭ রানের জুটি গড়ে দলের চাপ সামলে নেওয়ার চেষ্টা করেন অধিনায়ক মার্শাল আইয়ুব ও রকিবুল হাসান। ব্যক্তিগত ৬৫ রানে মার্শালের বিদায়ে ভাঙে এ জুটি।

এরপর শুভাগত হোমকে নিয়ে আরও একটি দারুণ জুটি গড়েন রকিবুল। পঞ্চম উইকেটে ১২২ রান যোগ করেন এ দুই ব্যাটসম্যান। তবে রকিবুলের বিদায়ের পর আবার বিপদে পড়ে দলটি। ২৫ রানে হারায় ৩টি উইকেট। শেষ পর্যন্ত ৭ উইকেটে ৩৫২ রানে করে দিন শেষ করে তারা। ফলো অন এড়াতে এখনো প্রয়োজন ১৩৪ রান। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৮৫ রানের ইনিংস খেলেন রকিবুল। শুভাগত ৭৩ ও সাদমান ইসলাম ৫৬ রান করেন। উত্তরাঞ্চলের পক্ষে ১০৬ রানের খরচায় ৫টি উইকেট পেয়েছেন সোহাগ গাজী।

এবিএন/শংকর রায়/জসিম

প্রধান শিরোনাম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত