শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১২ ফাল্গুন ১৪২৫
logo
feb18  

কাবুলে ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে হামলায় নিহতদের ১৪ জন বিদেশি

কাবুলে ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে হামলায় নিহতদের ১৪ জন বিদেশি
ঢাকা, ২২ জানুয়ারি, এবিনিউজ : আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে তালেবান হামলায় ১৪ বিদেশিসহ ১৯ জন নিহত হয়েছে।
 
শনিবার স্থানীয় সময় রাত ৯টার দিকে ৫ হামলাকারীর একটি দল আগ্নেয়াস্ত্র এবং বিস্ফোরক ভেস্ট নিয়ে হোটেলে প্রবেশ করে অতিথিদের জিম্মি করে।
 
দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়েল মুখপাত্র ওয়াহিদ মাজরহ বলেন, নগরীর সিটি হাসপাতালে ১৯টি মৃতদেহ নিয়ে আসা হয়েছে। নিহতদের মধ্যে ১৪ জন বিদেশি।
 
তাদের মধ্যে ১১ জন আফগানিস্তানের বেসরকারি এয়ারলাইন ‘ক্যামএয়ার’-এর কর্মী বলে জানায় দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।
 
হামলায় আরও ১০ জন আহত হয়েছেন। যাদের মধ্যে ৬ জন নিরাপত্তারক্ষী এবং চারজন বেসামরিক নাগরিক বলে জানান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়েল মুখপাত্র নাজিব দানিশ।
 
স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়, নিহতদের মধ্যে ভেনেজুয়েলা ও ইউক্রেইনের নাগরিক আছেন।
 
হামলার সময় ক্যামএয়ারের প্রায় ৪০জন পাইলট ও ক্রু হোটেলে অবস্থান করছিলেন, যাদের বেশির ভাগই বিদেশি।
 
এয়ার লাইনটির উপপরিচালক জামারি কামগার বলেন, ‘এখনো আমাদের কর্মীদের খুঁজে বের করার কাজ চলছে।’
 
হোটেলের অতিথি আব্দুল রহমান নাসেরি জানান, হামলাকারীদের অন্তত ৪ জন আফগান সেনাদের পোশাক পরে ছিলেন।
 
নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে কয়েক ঘণ্টার বন্দুকযুদ্ধের পর রোববার ভোরে শেষ বন্দুকধারীকে হত্যা করে হোটেলটি মুক্ত হয় বলে জানায় বার্তা সংস্থা রয়টার্স।
 
দিনের আলো ফোটার সঙ্গে সঙ্গেই হোটেল ভবনটি থেকে ঘন কালো ধোঁয়ার মেঘ বের হতে দেখা যায়।
 
আফগান পুলিশ ইউনিটগুলোর পাশাপাশি মার্কিন সামরিক বাহিনীর সাঁজোয়া যান নিয়ে অভিযানে অংশ নিয়েছে।
 
হোটেল থেকে ৪১ জন বিদেশিসহ মোট ১৫৩ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। 
 
কাবুলে একটি পাহাড়ের চূড়ায় অবস্থিত ৬ তলা হোটেলটি বিদেশিদের কাছে দারুণ জনপ্রিয়।
 
আফগান তালেবান এ হামলার দায় স্বীকার করেছে বলে জানায় দ্য গার্ডিয়ান।
 
তালেবান মুখপাত্র জাবিহউল্লাহ মুজাহিদ বলেন, ‘প্রথমে আমরা বৃহস্পতিবার রাতে কন্টিনেন্টাল হোটেলে হামলার পরিকল্পনা করেছিলাম। কিন্তু সেদিন সেখানে একটি বিয়ের অনুষ্ঠান চলছিল। যে কারণে আমরা হামলার সময় পিছিয়ে দেই; চাইনি বেসামরিক লোকজন হতাহত হোক।’
 
কাবুলে অধিকাংশ সরকারি ভবনের মতো ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলেও ব্যাপক সুরক্ষা ব্যবস্থা ছিল। এর আগে ২০১১ হোটেলটিতে হামলা চালিয়েছিল তালেবান।
এবিএন/সাদিক/জসিম/এসএ

প্রধান শিরোনাম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত