logo
রবিবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৭
bijoy
  • হোম
  • সারাদেশ
  • কালিহাতীতে পিডিবির ভূয়াবিল বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন

কালিহাতীতে পিডিবির ভূয়াবিল বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন

কালিহাতীতে পিডিবির ভূয়াবিল বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন

টাঙ্গাইল, ২৩ নভেম্বর, এবিনিউজ : টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলা কয়েকটি গ্রামের মানুষ পিডিবির ভূয়া বিদ্যুৎ বিলের কারনে চরম ভোগান্তি শিকার হচ্ছেন। অসহায় গ্রাহকরা ভূয়া বিদ্যুৎবিল বন্ধ ও জড়িতদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছেন। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের বেরিপটল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে মানববন্ধন শেষে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এলাকার ভুক্তভোগীদের অভিযোগ বিদ্যুৎ অফিসের কিছু অসাধু কর্মকর্তা ও কর্মচারী নিকট জিম্মি হয়ে পড়েছেন দুর্গাপুর ইউনিয়নের বেরিপটল, ভৈরববাড়ি, রামদেবপুর, চরহামজানী, চরদুর্গাপুর গ্রামের প্রায় ২ হাজার গ্রাহক।

২০১৩ সালে গ্রামগুলো বিদ্যুতায়ন হওয়ায় পর থেকে শুরু হয়েছে ভূয়াবিল। ব্যবহারকৃত ইউনিটের চেয়ে প্রত্যেক গ্রহকদের বিল দ্বিগুন-তিনগুন পরিমান ধার্য করা হয়। ব্যবহার না করেও প্রতিমাসে অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিল প্রদান করছেন ওই এলাকার মানুষ। এতে নাভিশ্বাস।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, ভোগান্তি শিকার বেরিপটল গ্রামের আব্দুল আজিজ বলেন, আমার মিটারের বর্তমান ইউনিট ১৪১২, কিন্তু বিদ্যুৎবিলে দেখানো হয়েছে ২৯১৫ ইউনিট। কদ্দুস মিয়ার মিটারের বর্তমান ইউনিট ১২৭৬ কিন্তু বিল করা হয়েছে ৩৪৩০ ইউনিট। আব্দুল হালিম নামের আরেক গ্রাহক জানান আমি একটি মাত্র বাতি ও ফ্যান ব্যবহার করি। আমার প্রতিমাসে বিল আসে হাজার টাকার উপরে।

ভূক্তভোগী গ্রাহকরা জানান, স্থানীয় স্বাধীন, জাহাঙ্গীর হোসেন, নাছির উদ্দিন ও জুয়েল রানা বিদ্যুৎ অফিসের হয়ে এলাকায় কাজ করেন। এরা নিজের ইচ্ছেমত ইউনিট বসিয়ে বিল তৈরী করেন। ঘুষের বিনিময়ে কারো বিল কমিয়ে দেন কারো বাড়িয়ে দেন। এ বিষয়ে আমরা ২০১৫ সালে অভিযোগ করে ছিলাম কিন্তু কোন লাভ কাজ হয়নি।

মান্ববন্ধন শেষে সমাবেশে কালিহাতী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও দুর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন প্রামাণিক বলেন, আমার ইউনিয়নের পাচ গ্রামের কমপক্ষে ২ হাজার গ্রাহক রয়েছে। তারা প্রতিমাসে ভূয়াবিল দিবে বাধ্য হচ্ছেন। ভুয়া বিদ্যুৎবিল সাথে জড়িতদের শাস্তি দাবি করছি। সেই সাথে মিটার দেখে বিল না করা হলে ভক্কভোগিরা বৃহতর আন্দোলন গড়ে তুলবেন।

মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করেন বেরিপটল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল হালিম মিয়া, ইউপি সদস্য মুছা মন্ডল, ইসরাইল হোসেন, সিদ্দিক মন্ডল, আমজাদ হোসেন, সুরমান হোসেন, আব্দুল লতিফ, সাদেক আলীসহ এলাকার কয়েক হাজার মানুষ।

এ বিষয়ে টাঙ্গাইল পিডিবির-৩ এর নির্বাহী প্রকৌশলী আনোয়রুল ইসলাম বলেন, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মুন পাওয়ার ইঞ্জিনিয়ারিং বিদ্যুৎ বিল প্রস্তুত ও বিতরণ করে। বিলে কোন ভুল ক্রুটি থাকলে সেটা ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানে বিষয়। সুনিদিষ্ট কোন অভিযোগ পেলে তদন্তপূবর্ক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এবিএন/তারেক আহমেদ/জসিম/এমসি

প্রধান শিরোনাম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত