logo
শনিবার, ২৫ নভেম্বর ২০১৭
 
  • হোম
  • আদালত
  • গোবিন্দগঞ্জের সাঁওতালদের পুনর্বাসনে শিগগিরই ব্যারাক নির্মাণ

গোবিন্দগঞ্জের সাঁওতালদের পুনর্বাসনে শিগগিরই ব্যারাক নির্মাণ

গোবিন্দগঞ্জের সাঁওতালদের পুনর্বাসনে শিগগিরই ব্যারাক নির্মাণ

ঢাকা, ২৩ অক্টোবর, এবিনিউজ : গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে সংঘর্ষের ঘটনায় উচ্ছেদ হওয়া সাঁওতালদের পুনর্বাসনের লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে বাস্তবায়নাধীন বোগদহ আশ্রয়ণ, ফকিরগঞ্জ আশ্রয়ণ, ফুলহার-১ আশ্রয়ণ প্রকল্পের মাটির কাজ সম্পন্ন হয়েছে। সেখানে শিগগিরই বাংলাদেশ সেনাবাহিনী কর্তৃক ব্যারাক নির্মাণ কাজ আরম্ভ হবে।

আজ সোমবার হাইকোর্টে গাইবান্ধার জেলা প্রশাসক গৌতম চন্দ্র পালের লিখিত বক্তব্যে এসব তথ্য জানানো হয়। আদালতে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তাপস কুমার বিশ্বাস ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল টাইটাস হিল্লোল রেমা।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, তবে সাম্প্রতিক ভয়াবহ বন্যায় প্রকল্পগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় তা মেরামতের প্রয়োজন সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়কে অবহিত করা হয়। কর্মোত্তর জরিপ গ্রহণপূর্বক প্রকল্পগুলোতে সিআই সিট ব্যারাক নির্মাণের জন্য প্রকল্প পরিচালকের কাছ থেকে সশস্ত্র বাহিনী বিভাগকে কার্যাদেশ প্রদান করা হয়েছে।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তাপস কুমার বিশ্বাস আদালতকে আরো জানান, বন্যা-পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী কর্তৃক প্রকল্পগুলো পরিদর্শন ও প্রাথমিক জরিপ কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। শিগগিরই ব্যারাক নির্মাণ কাজ আরম্ভ হবে এবং ওই আশ্রয়ণ প্রকল্পসমূহের ব্যারাক নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হলে ক্ষুদ্র-নৃগোষ্ঠীর সাঁওতাল পরিবারকে পুনর্বাসন করা সম্ভব হবে। বর্তমানে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর জীবনযাত্রা স্বাভাবিক রয়েছে বলে আদালতকে জানানো হয়।

পরে আদালত এ বিষয়ে অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আগামী ২২ নভেম্বর দিন ধার্য করে আদেশ দেন।

এর আগে গত ২ মার্চ গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে সংঘর্ষের ঘটনায় উচ্ছেদ হওয়া সাঁওতালদের পুনর্বাসনে আশ্রয়ণ প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। এই আশ্রয়ণ প্রকল্পে ৩০০ পরিবারকে পুনর্বাসন করা যাবে বলে প্রতিবেদন দেন গাইবান্ধার জেলা প্রশাসক।

গত ১৫ ফেব্রুয়ারি উচ্ছেদ হওয়া সাঁওতালদের পুনর্বাসনে কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, তা জানতে  চান হাইকোর্ট। এ বিষয়ে গাইবান্ধার জেলা প্রশাসক ও গোবিন্দগঞ্জের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে (ইউএনও) ৩০ দিনের মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়।

বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহর সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ  স্বতঃপ্রণোদিত রুলের পাশাপাশি এ আদেশ দেন।

উল্লেখ্য, গত বছরের ৬ নভেম্বর গোবিন্দগঞ্জে রংপুর চিনিকলের জমিতে আখ কাটাকে কেন্দ্র করে পুলিশ ও চিনিকলের শ্রমিক-কর্মচারীদের সঙ্গে সাঁওতালদের সংঘর্ষ হয়। উপজেলার সাপমারা ইউনিয়নের সাহেবগঞ্জ এলাকায় ওই সংঘর্ষে কয়েকজন সাঁওতাল নিহত ও পুলিশসহ উভয় পক্ষের অন্তত ২০ জন আহত হন। সাঁওতালদের ঘরে অগ্নিসংযোগ করা হয়।

এবিএন/জনি/জসিম/জেডি

প্রধান শিরোনাম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত