logo
সোমবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৭
 
  • হোম
  • জাতীয়
  • রায়ের কপি পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর রিভিউ: আইনমন্ত্রী
ষোড়শ সংশোধনী বাতিল

রায়ের কপি পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর রিভিউ: আইনমন্ত্রী

রায়ের কপি পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর রিভিউ: আইনমন্ত্রী

রংপুর, ২১ সেপ্টেম্বর, এবিনিউজ : সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনীর সুপ্রিম কোর্টে বাতিলের রায়ের কপি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে রিভিউ করা হবে বলে জানিয়েছেন  আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়কমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক।

বৃহস্পতিবার দুপুরে রংপুরে নবনির্মিত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবন উদ্বোধনকালে তিনি এ কথা জানান।

এসময় তিনি বলেন, ‘রায়ের সার্টিফায়েড কপির জন্য সুপ্রিম কোর্টের কাছে আবেদন করা হয়েছে। ৭৯২ পৃষ্ঠার এ রায়ের কপি পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে রায় পুনর্বিবেচনার জন্য সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করা করা হবে।’

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা হোক- এটা আমরা চাই। বিচারকরা স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারবেন- এটা আমরাও চাই। বিচার বিভাগের স্বাধীনতা ক্ষুণ্ন হউক এটা আমরা চাই না।’

এর আগে মন্ত্রী জেলা আইনজীবী সমিতির নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। আদালত ভবন উদ্বোধনের পর সুধী সমাবেশে অংশ নেন তিনি।

রংপুর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবন প্রথম দফায় ৫ তলা নির্মাণ করা হয়েছে। ২০১৩ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি এটির নির্মাণ কাজ শুরু হয়। এ জন্য ব্যয় হয়েছে ২২ কোটি ৮৪ লাখ ২৬ হাজার টাকা। এর উপরে আরো ৫ তলার নির্মাণ কাজ চলছে।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশের সংবিধানে যে ষোড়শ সংশোধনীর মাধ্যমে বিচারপতি অপসারণ করার ক্ষমতা জাতীয় সংসদের হাতে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছিল, সেটি অবৈধ ঘোষণা করে রায় দেন হাই কোর্ট। হাই কোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের করা আপিল খারিজ করে সেই রায় বহাল রাখেন সুপ্রিম কোর্ট।

বাংলাদেশের প্রথম সংবিধানে উচ্চ আদালতের বিচারকদের অপসারণের ক্ষমতা সংসদের হাতে রাখা হয়েছিল। এরপর ১৯৭৫ সালে সংবিধানের চতুর্থ সংশোধনীর পর বিচারক অপসারণের ক্ষমতা রাষ্ট্রপতির হাতে ন্যস্ত হয়।

২০১৪ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী আনা হয়, যাতে বিচারক অপসারণের ক্ষমতা ফিরে পায় সংসদ। সংশোধনীর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ওই বছরের ৫ নভেম্বর হাই কোর্টে রিট আবেদন করেন নয়জন আইনজীবী। ২০১৬ সালের ৫ মে হাই কোর্ট সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী অবৈধ ঘোষণা করে রায় দেন। এর বিরুদ্ধে আপিল করে রাষ্ট্রপক্ষ, যা গত ৩ জুলাই খারিজ করে দেন সর্বোচ্চ আদালত।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা ও দায়রা জজ হুমায়ুন কবির। এ সময় বক্তব্য রাখেন পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গা, রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র সরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টু, সংসদ সদস্য আবুল কালাম মোহাম্মদ আহসানুল হক ডিউক, সংসদ সদস্য আডভোকেট হোসনে আরা লুৎফা ডালিয়া, আইন সচিব আবু সালেহ শেখ মোহাম্মদ জহিরুল হক, জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ ওয়াহেদুজ্জামান প্রমুখ।

এবিএন/জনি/জসিম/জেডি

প্রধান শিরোনাম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত