logo
শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর ২০১৭
 
  • হোম
  • অপরাধ
  • ভিডিও প্রকাশের হুমকি দিয়ে স্কুলছাত্রীকে কয়েকবার ধর্ষণ!

ভিডিও প্রকাশের হুমকি দিয়ে স্কুলছাত্রীকে কয়েকবার ধর্ষণ!

ভিডিও প্রকাশের হুমকি দিয়ে স্কুলছাত্রীকে কয়েকবার ধর্ষণ!

টাঙ্গাইল, ০৮ সেপ্টেম্বর, এবিনিউজ : টাঙ্গাইলের সখীপুরে ধর্ষণের ভিডিও মুঠোফোনে ধারণ করে ওই ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে এক স্কুলছাত্রীকে (১৫) দফায় দফায় ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় আজ শুক্রবার বিকেলে ওই স্কুলছাত্রী বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন।

মেয়েটি বর্তমানে প্রায় পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা। সে স্থানীয় একটি স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্রী। অভিযুক্ত লিটন আহাম্মেদ (৪৫) উপজেলার কালিয়া ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি বড়চওনা গ্রামের মতিউর রহমানের ছেলে।

মামলা নথি সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসের আনুমানিক ২৮ তারিখ বিকেল বেলায় ওই স্কুলছাত্রী প্রতিবেশি লিটনের বাড়িতে বেড়াতে যায়। বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে লিটন কৌশলে ঘরে নিয়ে মেয়েটিকে ধর্ষণ করে। পরে ওই মেয়েটির বিবস্ত্র ছবি ও ভিডিও মুঠোফোনে ধারণ করে লিটন। এরপর ভিডিওটি ইন্টারনেটের মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়াসহ তার বাবা-মাকে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে লিটন ওই মেয়েটিকে নিয়মিত ধর্ষণ করতে থাকে।

নির্যাতিতা স্কুলছাত্রী জানায়, লিটন ওই ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে দফায় দফায় তাকে ধর্ষণ করেছে। এক পর্যায়ে সে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে ঘটনাটি প্রকাশ পায়। পরে তার পরিবার গত ২৩ আগস্ট স্থানীয় একটি ক্লিনিকে তার আলট্রাসনোগ্রাফি করায়। আলট্রাসনোগ্রাফির রিপোর্টে সে ১৭ সপ্তাহের অন্তসত্ত্বা বলে জানানো হয়।

মেয়েটির বাবা বলেন, কয়েক সপ্তাহ ধরে বিষয়টি জানাজানি হলে লিটন আমাদের পরিবারকে মামলা না করার হুমকি-ধামকি দেয়।

স্থানীয় সাবেক ও বর্তমান জনপ্রতিনিধিরা বলেন, লিটন আগে থেকে নষ্ট চরিত্রের। নারী সংক্রান্ত অনেকগুলো কুকর্ম তার রয়েছে। তার বিচার হওয়া দরকার। এ বিষয়টি ছড়িয়ে পড়ায় লিটন আহম্মেদ গা ঢাকা দিয়েছে।

এ বিষয়ে সখীপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাকছুদুল আলম বলেন, মামলাটি রেকর্ড করা হয়েছে। আসামি লিটন আহম্মেদকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। শনিবার মেয়েটিকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হবে।

এবিএন/জনি/জসিম/জেডি

প্রধান শিরোনাম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত