logo
মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর ২০১৭
 

সৌর বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত সাওতাল পল্লী

সৌর বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত সাওতাল পল্লী
তানোর, ১৭ আগস্ট, এবিনিউজ: রাজশাহীর তানোরের ঐতিহ্যবাহী, ইতিহাস সমৃদ্ধ ও সর্ব বৃহত কলমা ইউনিয়ন পরিষদ ইউপির উন্নয়নের রুপকার ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি লুৎফর হায়দার রশিদ ময়না তার ইউপির বিভিন্ন এলাকার প্রত্যন্ত ও নিভৃত পিছিয়ে পড়া সাওতাল পল্লীর বাসিন্দাদের জীবনযাত্রার মানোন্নয়নে ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকান্ড হাতে নিয়েছেন। সাওতাল পল্লীর উন্নয়নে সৌরবিদ্যুৎ, বৃক্ষরোপণ, আইনশ্ঙ্খৃলার উন্নয়ন, মাদক প্রতিরোধ, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি বৃদ্ধি, শিক্ষা বিস্তার ও সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড বৃদ্ধি, বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ, ক্রীড়া, শতভাগ স্যানিটেশন, দারিদ্র বিমোচন, বেকারত্ব দূরীকরণ, বিশুদ্ধ পানি, কৃষি ও মানবাধিকার উন্নয়নে ব্যাপক কর্মসূচি হাতে নিয়েছেন। জানা গেছে, আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী হিসেবে পরপর দু’বার বিপুল ভোটের ব্যবধানে ময়না ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার কলমা ইউপির অবহেলিত ও পিছিয়ে সাওতাল পল্লীগুরোর উন্নয়নের দরজা খুলে যায়। তার সময়ে সাওতাল পল্লীগুলোতে সামাজিক, সাংস্কৃতিক, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক, শিক্ষা ও যোগাযোগ ব্যবস্থাসহ প্রভৃতি ক্ষেত্রে যে উন্নয়ন হয়েছে তা বিগত একশ’ বছরেও হয়নি। বিশেষ করে সাওতাল পল্লীগুলোতে দৃশ্যমান যে উন্নয়ন কাজ হয়েছে তা চোখে না দেখলে বিশ্বাস করা কঠিন। ইউপি চেয়ারম্যান ময়না একজন সফল রাজনৈতিক নেতাই নন তিনি তার ভালবাসা ও সমাজসেবা দিয়ে সাধারণে মানুষের মধ্যমনি হয়ে উঠেছেন। শুধু সরকারি সহায়তায় নয় ব্যক্তিগত ভাবেও তিনি সাধারণ মানুষের সমস্যা-সংকটে ঝাপিয়ে পড়েন। সমাজের হতদরিদ্র মানুষের অসুখ-বিসুখে সহায়তা প্রদান, ছেলেমেয়েদের লেখাপড়ার খরচ যোগান, কন্যা দায়গ্রস্ত পিতা-মাতার পাশে দাড়িয়ে বিয়েতে সহায়তা করাসহ এমন কোনো কাজ নাই যা তিনি করেন না। ফলে তিনি আজ শুধু কলমা ইউপির নেতা নন, তিনি এখন তানোর উপজেলার দলমত নির্বিশেষে সর্বস্তরের সাধারণ মানুষের নেতায় পরিণত হয়ে উঠেছেন।
খোজ নিয়ে জানা গেছে, কলমা ইউপির মাহালী সাওতাল পাড়া গ্রামের প্রতিটি ঘরে ঘরে ৩৫টি পরিবারের মধ্যে বিনামূল্য সৌর বিদ্যুৎ ও স্যানিটেশান সামগ্রী দিয়েছেন। এখানে অবস্থিত প্রায় ৩ একর আয়তনের একটি সরকারি খাস পুকুর সাওতাল পল্লীর বাসিন্দাদের বিনামূল্য মাছ চাষের জন্য দেয়া হয়েছে, প্রায় শতাধিক পরিবার প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে এই পুকুর থেকে উপকৃত হচ্ছেন। অপরদিকে কন্দপুর হাটপুকুরিয়া সাওতাল পল্লীর প্রতিটি ঘরে ঘরে ৩৪টি বিনামূল্য সৌর বিদ্যুৎ ও স্যানিটেশান সামগ্রী দিয়েছেন। এছাড়াও এখানে অবস্থিত প্রায় ৩ বিঘা আয়তনের একটি সরকারি খাস পুকুর মাছ চাষের জন্য সাওতাল পল্লীর বাসিন্দাদের দেয়া হয়েছে। আবার সৌর বিদ্যুৎ দেবার পরপরই এসব পল্লীতে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়াও হয়েছে। এদিকে এসব প্রকল্প বাস্তবায়ন করায় একটি যেমন সাওতাল পল্লী বাসিন্দাদাদের দীর্ঘদিনের বিদ্যুতের চাহিদা পূরুণ হয়েছে,অন্যদিকে তেমনি পল্লীর বাসিন্দাদের জীবনযাত্রার মাণ বেড়েছে। মাহালীপাড়া সাওতাল পল্লীর বাসিন্দা বার্ণা মাঝি, শিমুল হেমরম, শিবাস টিয়াল এবং কন্দপুর হাটপুকুরিয়া সাওতাল পল্লীর বাসিন্দা রমেশ টুডু ও পরিমল হেমরম বলেন, বিনামূল্য তারা বিদ্যুতের আলো ও স্যানিটেশন সুবিধা পাবেন এটা তারা কখনো কল্পনাও করেননি। তারা বলেন, এসব প্রকল্প বাস্তবায়ন করায় ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে তারা কৃতজ্ঞ।
অপরদিকে ইউপির বিভিন্ন এলাকায় অবস্থিত প্রতিটি মসজিদ প্রায় ১২০টি ও প্রতিটি মন্দির-গীর্জা প্রায় ২৫টিতে বিনামূল্য সৌর বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়েছে। এছাড়াও ইউপির প্রধান প্রধান হাট-বাজার ও মোড়ে মোড়ে স্ট্রিস্ট লাইট ‘সড়ক বাতি’ স্থাপনের কাজ চলমান রয়েছে। এব্যাপারে কলমা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি লুৎফর হায়দার রশিদ ময়না বলেন, আদিবাসিরা বরাবরই বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত থাকে। ভোটের পরে কেউ তাদের খোজখবর রাখে না,তাই তিনি আদিবাসিদের উন্নয়নের জন্য অগ্রাধিকার ভিত্তিত্বে প্রকল্প গ্রহণ ও বাস্তবায়ন শুরু করেছেন, যা এখানো চলমান রয়েছে। 
 
এবিএন/আলিফ হোসেন/জসিম/নির্ঝর

প্রধান শিরোনাম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত