logo
শুক্রবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭
 

উন্নয়নে সব থেকে বেশি অবদান রেখে যাচ্ছে আমাদের কৃষি : প্রধানমন্ত্রী

উন্নয়নে সব থেকে বেশি অবদান রেখে যাচ্ছে আমাদের কৃষি : প্রধানমন্ত্রী
ঢাকা, ১৬ জুলাই, এবিনিউজ : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশের সব উন্নয়নে সব থেকে বেশি অবদান রেখে যাচ্ছে আমাদের কৃষি। আমরা ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়া করাচ্ছি। স্বাভাবিকভাবে লেখাপড়া করে কেউ কৃষি কাজ করতে চায় না। আমি মনে করি লেখাপড়া করেও সে কাজ করা যায়। এতে অসম্মানের কিছু নেই। আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করার পর আল্লাহর রহমতে মানুষ মঙ্গার কথা ভুলে গেছে।
 
আজ রবিবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পদক প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।
 
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশকে পিছিয়ে দেয়া হয়েছিল। ২০০৯ সালে সরকার গঠনের পর আমরা হাল ধরেছি। আমরা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া আমাদের লক্ষ্য।
 
তিনি বলেন, আমাদের কৃষকরা অসাধ্য সাধন করেছিল। ১৯৯৮ সালে এত বড় বন্যা আর হয়নি। সব কিছু বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। আন্তর্জাতিকভাবে বলা হয়েছিল প্রায় ২ কোটি লোক মারা যাবে। কিন্তু তা হয়নি। আমরা বীজ হেলিকপ্টারে করে পৌঁছে দিয়েছিলাম।
 
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশের মানুষ যাতে খাদ্যে কষ্ট না পায় তার ব্যবস্থা করেছি। কৃষকদের আমরা সার, ভর্তুকি, কৃষি উপকরণ কার্ড করে দিয়েছি। কৃষিতে এখন প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে। এটা আর পিছিয়ে নেই।
 
শেখ হাসিনা বলেন, শুধু শহরে বসবাসকারী লোকজনের জন্য আমাদের উন্নয়ন নয়। আমাদের উন্নয়নের মূল লক্ষ্য হচ্ছে মাঠ পর্যায়ের, একেবারে তৃণমূলের মানুষের উন্নয়ন। সেদিকে লক্ষ্য রেখেই আমরা বাজেট প্রণয়ন করি। সেভাবেই আমরা কাজ করে যাচ্ছি।
 
তিনি বলেন, আমাদের লোক সংখ্যা বাড়ছে ঠিক। খাদ্য নিরাপত্তা আমরা দিতে পারব। কারণ আমরা নতুন নতুন পদক্ষেপ গ্রহণ করছি। ‘৯৬ সালে ক্ষমতা আসার পর শুনি ওয়ার্ল্ড ব্যাংক বিএডিসিকে অলাভজনক প্রতিষ্ঠান বলে সেটাকে বন্ধ করে দিতে বললো। আমি বললাম এটা বন্ধ হবে না। শুধু বেসরকারি উৎসের ওপর নির্ভরশীল থাকলে হবে না। কারণ তারা ভালো বীজ দেবে কিনা।   
 
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের খাদ্যভাস পরিবর্তন করা দরকার। আমরা শস্যের বহুমুখীকরণ এবং বাণিজ্যিকরণের চেষ্টা করছি। কারণ শুধু ধান উৎপাদন নয়, পাশাপাশি অন্যান্য ফসল উৎপাদনে আমাদের বিশেষ দৃষ্টি দিতে হবে। জলজ প্রাণীর দিকে আমাদের বিশেষ দৃষ্টি দিতে হবে।
 
তিনি বলেন, ৭ কোটি মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করে আর ১৩ কোটি মোবাইল সিম ব্যবহার হয়। তাই আমরা ই-কৃষি সার্ভিস চালু করে দিয়েছি। কৃষি তথ্য সেবা আমরা চালু করেছি।
 
কৃষি খাতে সরকারের সফলতা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দুধের উৎপাদন বেড়েছে। মাংস উৎপাদন আমরা বৃদ্ধি করেছি। শুধু দেশের চাহিদা মেটানো না, আমরা যেন বিদেশে রফতানি করতে পারি সেদিকে আমাদের নজর রাখতে হবে। আলু উৎপাদনে পৃথিবীর সপ্তম অবস্থানে আছে বাংলাদেশ। সবজি উৎপাদনে আমরা তৃতীয় অবস্থানে। তাছাড়া বিভিন্ন নতুন নতুন ধরনের ফল গবেষণা করে আমরা উৎপাদন করছি।
 
সরকার গৃহীত ১০০টি শিল্পাঞ্চলের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত পণ্যগুলো প্রক্রিয়াজাত করা,সংরক্ষণ করা এবং বাজারজাত করার ব্যবস্থা রেখেই কিন্তু আমরা এসব অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলছি।
 
এবিএন/সাদিক/জসিম/এসএ

প্রধান শিরোনাম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত