logo
বৃহস্পতিবার, ২৫ মে ২০১৭
 
 

জেনে নিন বুদ্ধ পূর্ণিমার মাহাত্ম্য

জেনে নিন বুদ্ধ পূর্ণিমার মাহাত্ম্য

ঢাকা, ১০ মে, এবিনিউজ : আজ বুদ্ধ পূর্ণিমা। বুদ্ধ পূর্ণিমা বা বৈশাখী পূর্ণিমা বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের জন্য এক পবিত্র দিন। এটি বৈশাখ মাসের পূর্ণিমা তিথি। এই বুদ্ধ পূর্ণিমার রাতেই সিদ্ধার্থ গৌতম থেকে বুদ্ধে পরিণত হয়েছিলেন তিনি কারণ বহু দুর্লভ, অপ্রাপ্য বোধি লাভ করেছিলেন। বোধি মানে জ্ঞান, এরই ফলে তিনি হয়েছিলেন পরম জ্ঞানী।

প্রথম জীবনে তিনি ছিলেন নেপালের কপিলাবস্তু রাজ্যের রাজা শুদ্ধোধনের সন্তান। খৃস্টপূর্ব ৬২৪ অব্দে তিনি নেপালের লুম্বিনী বাগানে জন্মগ্রহণ করেন, খৃস্টপূর্ব ৫৮৯ অব্দে বোধিজ্ঞান লাভ করেন ভারতের বুদ্ধগয়ায় এবং খৃস্টপূর্ব ৫৪৪ অব্দে মহাপ্রয়ান করেন ভারতেরই কুশীনগরে ৷ মহাপ্রয়াণের বৌদ্ধিক লব্দ হলো মহাপরিনির্বাণ। তিনি মানুষের দুঃখ মুক্তির পথ অন্বেষণের জন্য ২৯ বছর বয়সেই সংসার ত্যাগ করেছিলেন। সাধারণত বিশ্বের কোনও মহামানবের জীবনের ৩টি প্রধান ঘটনা একই তিথিতে সংঘতে খুব কমই দেখা যায়। সে জন্য এই পূর্ণিমা বৌদ্ধদের সর্বশ্রেষ্ঠ পূর্ণিমা এবং জাকজমকপূর্ণ ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক উৎসবে পরিণত হয়েছে।

খৃস্টপূর্ব ষষ্ঠ শতাব্দীর ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক ইতিহাস খুবই তাৎপর্যপূর্ণ, কেননা সে সময় চিনে কনফিউসিয়াস, পারস্যে জরাথ্রুস্ট, ভারতে মহাবীর ও বুদ্ধের আর্বিভাব ঘটেছিল। বুদ্ধ পূর্ণিমায় পৃথিবীতে যে নতুন ধর্মের জন্ম নিয়েছিল তাই আজ বৌদ্ধ ধর্ম বলে পরিচিত। এই ধর্মের মূল লক্ষ্য হল সাম্য, মৈত্রী, করুণা, অহিংসা ও মানবতাবাদ। জাতিভেদ, বর্ণভেদ, বৈষম্য ও নিপিড়ীত সমাজে বুদ্ধের এই আহ্বান মানুষকে স্বস্তি ও শান্তি এনেছিল। সমাজের সর্বস্তরে তখন সামাজিক, ধর্মীয়, অর্থনৈতিক বৈষম্যের ফলে মানবজীবনে যে হতাশা ও ব্যর্থতার সৃষ্টি হয়েছিল-সেই ব্যর্থতা থেকে মানুষকে তথা মানবতাকে উদ্ধার করে গণমুখী গ্রহণযোগ্য জীবন পদ্ধতির নির্দেশ দিয়েছিলেন। সে সময়ে সমাজে নারীরা ছিল ঘৃণিত, বুদ্ধ তাদের এই দুঃসহ অবস্থা থেকে মুক্ত করে পুরুষের পাশাপাশি সম মর্যাদা দিয়েছিলেন।

এবিএন/ফরিদুজ্জামান/জসিম/এফডি

প্রধান শিরোনাম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত