logo
সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০১৬
 
 
সিটিসেল বন্ধ: অপারেটরদের ক্ষতিপূরণ না দিলে আইনগত ব্যবস্থা
সিটিসেল বন্ধ: অপারেটরদের ক্ষতিপূরণ না দিলে আইনগত ব্যবস্থা

ঢাকা, ০৭ আগস্ট, এবিনিউজ : সিটিসেল বন্ধ করলে এ অপারেটর ব্যবহারকারীদের ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। অন্যথায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ।
তিনি অপারেটরটি বন্ধ করার আগে এ বিষয়ে গণশুনানির দাবিও জানান। আজ রবিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে মহিউদ্দিন আহমেদ জানান, সিটিসেল গ্রাহকেরা অন্য অপারেটরে গেলে প্রায় ৭ লাখ ১০ হাজার গ্রাহক আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হবে। নিবন্ধিত গ্রাহকদের হিসাব অনুযায়ী হ্যান্ডসেট ও রিম সর্বশেষ বাজার দর হিসাব করলে ১৪২ কোটি টাকা। এ ছাড়া মডেম ব্যবহারকারীর ক্ষতি ৩০ কোটিসহ মোট ক্ষতি দাঁড়াবে ১৮০ কোটি ৯২ লাখ টাকা।
তিনি বলেন, ‘সম্প্রতি বিটিআরসি বিশেষ মহড়ার আয়োজন করে ইন্টারনেট বন্ধ করেছে। আমি মনে করি ইন্টারনেট বন্ধ কোনো ভালো উদ্যোগ নয়। আন্তর্জাতিক গেটওয়ে (আইজিডব্লিউ) বিটিআরসির হাতে না রেখে ৩৪টি প্রতিষ্ঠানকে লাইসেন্স দেওয়ায় ঢাকাসহ সব সিটি করপোরেশন ক্যাবলের জঞ্জালে আবদ্ধ হয়েছে।’
সংবাদ সম্মেলনে তিনি সংগঠনের পক্ষ থেকে বেশ কিছু সুপারিশ তুলে ধরেন। সুপারিশগুলো হলো :
১. জঙ্গি তৎপরতায় ব্যবহৃত সব পেজ, অ্যাপ, সাইট স্বয়ংক্রিয়ভাবে করতে ত্বরিত ব্যবস্থা নিতে হবে।
২. জঙ্গিবিরোধী প্রচারের মধ্যে তথ্যপ্রযুক্তির অপব্যবহার সম্পর্কে জনসচেতনতা তৈরির উদ্যোগ নিতে হবে।
৩. ফেসবুক আইডি খোলার সময় মুঠোফোন নম্বর দিয়ে খোলা বাধ্যতামূলক করতে হবে।
৪. সিটিসেল বন্ধ করার আগে এ বিষয়ে গণশুনানির আয়োজন করতে হবে।
৫. বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম, রিম নিবন্ধনে যে জালিয়াতি হচ্ছে তা বন্ধে হাইকোর্টের অবসরপ্রাপ্ত একজন বিচারপতির সমন্বয়ে কমিটি গঠন করে ব্যবস্থা নিতে হবে।
৬. ঢাকাসহ সারা দেশের সিটি করপোরেশনের ক্যাবলের জঞ্জাল থেকে মুক্ত হতে সারা দেশ ফ্রি ওয়াইফাই এর আওতায় আনতে হবে।
৭. অযাচিত ভূয়া অফার দিয়ে অপারেটরগুলির মেসেজ দেওয়া বন্ধ করতে হবে।
সংবাদ সম্মেলনে ছিলেন, বাংলাদেশ অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট ফোরামের সভাপতি কবির চৌধুরী তন্ময়, আইটি বিশেষজ্ঞ প্রকৌশলী সৈয়দ হাসান ঈমাম ফিরোজ, আইটি বিশেষজ্ঞ প্রকৌশলী মো. সাইফুল্লাহ, দুর্নীতি প্রতিরোধ আন্দোলনের সভাপতি হারুন-অর-রশিদ, সুপ্রিম কোর্টের অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান প্রমুখ। উল্লেখ্য, গত ৩১ জুলাই বিটিআরসির এক বিজ্ঞপ্তিতে সিটিসেল বন্ধের ঘোষণা দেওয়া হয় এবং সিটিসেল ব্যবহারকারীদের অন্য অপারেটর বেছে নেওয়ার প্রস্তাব দিয়ে দুঃখ প্রকাশ করা হয়।

এবিএন/রবি-২য়/তথ্যপ্রযুক্তি/শংকর রায়/মুস্তাফিজ/এস আর

প্রধান শিরোনাম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত