logo
রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০১৬
 
 
কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ৭৫তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত
কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ৭৫তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত

ঢাকা, ০৭ আগস্ট, এবিনিউজ : বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যদিয়ে শনিবার দেশব্যাপী বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের মৃত্যুবার্ষিকী পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে রাজধানীতে বাংলা একাডেমী, শিল্পকলা একাডেমীসহ বিভিন্ন সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান বিস্তারিত কর্মসূচির আয়োজন করে। এবার ছিল তাঁর ৭৫তম প্রয়ান তিথি। মহাকালের চেনা পথ ধরে প্রতিবছর বাইশে শ্রাবণ আসে। এই বাইশে শ্রাবণ বিশ্বব্যাপী রবী ভক্তদের কাছে একটি শূন্য দিন। রবীন্দ্র কাব্য সাহিত্যের বিশাল একটি অংশে যে পরমার্থের সন্ধান করেছিলেন সেই পরমার্থের সাথে তিনি লীন হয়েছিলেন এদিন। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠকুরের ৭৫-তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বাংলা একাডেমী দু’দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। প্রথম দিন একাডেমির কবি শামসুর রাহমান সেমিনার কক্ষে আহমদ রফিক রচিত রবীন্দ্রজীবন (তৃতীয় খ-)-এর প্রকাশনা উৎসবের আয়োজন করা হয়। এতে স্বাগত ভাষণ দেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান।
দ্বিতীয় দিন আগামীকাল রোববার বিকেল ৪টায় একাডেমির আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ মিলনায়তনে একক বক্তৃতা, সাংস্কৃতিক পরিবেশনা এবং রবীন্দ্রপুরস্কার-২০১৬ প্রদান অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। রবীন্দ্রবিষয়ক একক বক্তৃতা প্রদান করবেন বিশিষ্ট রবীন্দ্রসংগীতশিল্পী অধ্যাপক রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা। এ বছর রবীন্দ্রপুরস্কার প্রদান করা হবে অধ্যাপক সৈয়দ আকরম হোসেন এবং শিল্পী তপন মাহমুদকে। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন বাংলা একাডেমির সভাপতি ইমেরিটাস অধ্যাপক আনিসুজ্জামান।
বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ৭৫তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত আলোচনাপর্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব আক্তারী মমতাজ।
বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী এর সভাপতিত্বে অন্ষ্ঠুানে আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. আকতার কামাল ও বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের গবেষণা পরিচালক ড. বিনায়ক সেন। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন একাডেমির সংগীত, নৃত্য ও আবৃত্তি বিভাগের পরিচালক সোহরাব উদ্দিন।
আলোচনা শেষে সাংস্কৃতিক অন্ষ্ঠুানে ফারহানা চৌধুরী বেবীর পরিচালনায়-বাংলাদেশ একাডেমি অব ফাইন আর্টস পরিবেশন করে নৃত্যালেখ্য ‘ষড়ঋতু’, আমার মাথা নত করে দাও হে প্রভু এবং আকাশ ভরা সূর্য তারা। ‘কবে আমি বাহির হলেম এবং বিশ্বসাথে যোগে যেথায়, গানের কথায় দুটি সমবেত সংগীত পরিবেশন করে ‘সুরের ধারা’। একক সংগীত পরিবেশন করেন সাজেদ আকবর, নন্দিতা ইয়াসমিন, ফাহিম হোসেন চৌধুরী এবং রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা । বৃন্দ আবৃত্তি পরিবেশন করে কল্পরেখা এবং সবশেষে সামিনা হোসেন প্রেমা এর পরিচালনায় নৃত্যনাট্য ভানুসিংহের পদাবলী পরিবেশন করে ‘ভাবনা’।
আগস্টের প্রথম দিন দুপুরবেলা থেকেই রবীন্দ্রনাথের হিক্কা শুরু হয়। কবি কাতর স্বরে তখন উপস্থিত সবাইকে বলেছিলেন, ‘একটা কিছু করো, দেখতে পাচ্ছো না কী রকম কষ্ট পাচ্ছি।’ পরের দিন হিক্কা থামানোর জন্য ময়ূরের পালক পুড়িয়ে খাওয়ানো হলেও তাতে কিছুমাত্র লাঘব হল না। অগস্টের ৩ তারিখ থেকে কিডনিও নিঃসাড় হয়ে পরে। ৬ অগস্ট রাখি পূর্ণিমার দিন কবিকে পূবদিকে মাথা করে শোয়ানো হল। পরদিন ২২শে শ্রাবণ, ৭ আগস্ট রবীন্দ্রনাথের কানের কাছে মন্ত্র জপ করা হচ্ছে ব্রাহ্ম মন্ত্র ‘শান্তম, শিবম, অদ্বৈতম....তমসো মা জ্যোতির্গময়.....’। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তখন মৃত্যু পথযাত্রী। জোড়াসাঁকোর ঠাকুরবাড়ির ঘড়িতে তখন ২২শে শ্রাবণের বেলা ১২টা বেজে ১০ মিনিট। কবি চলে গেলেন অমৃত আলোকের নতুন দেশে।

এবিএন/রবি-১ম/সাহিত্য-সংস্কৃতি/ডেস্ক/জসিম/মুস্তাফিজ/লাম

প্রধান শিরোনাম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত