logo
সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০১৬
 
 
  • হোম
  • সারাদেশ
  • প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে সমগ্র জাতি ঐক্যবদ্ধ: বাণিজ্যমন্ত্রী
প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে সমগ্র জাতি ঐক্যবদ্ধ: বাণিজ্যমন্ত্রী
প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে সমগ্র জাতি ঐক্যবদ্ধ: বাণিজ্যমন্ত্রী

ভোলা, ০৬ আগস্ট, এবিনিউজ : বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এমপি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে সমগ্র জাতি ঐক্যবদ্ধ রয়েছে। তিনি বলেন, ইতোমধ্যে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিপক্ষে জাতীয় ঐকমত্য প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এসব অপকর্মের বিরুদ্ধে সারাদেশ আজ প্রতিবাদ মুখর হয়ে উঠেছে।

আজ শনিবার বেলা সাড়ে ১১টায় ভোলা শহরের বাংলা স্কুল মাঠের ভাসানী মঞ্চে জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস, গুপ্ত হত্যা ও নৈরাজ্যের প্রতিবাদে গণসমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন।

জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. দোস্ত মাহমুদ। তোফায়েল আহমেদ বলেন, বিএনপি জামায়াতকে সাথে নিয়ে জাতীয় ঐক্যের নামে তামাশা করছে। কারণ জামায়াত ’৭১ সালে আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীতা করেছে। মানুষ হত্যা করেছে, মা-বোনদের ইজ্জত লুট করেছে। এই দলটিকে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল সন্ত্রাসী দল হিসেবে চিহ্নিত করেছে। তাই জামায়াতকে নিয়ে ঐক্যের ডাক দিয়ে বিএনপি দেশের মানুষের সাথে প্রতারণা করেছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের প্রবীণ সদস্য আরো বলেন, যারা হাওয়া ভবন থেকে ২০০৪ সালে বঙ্গবন্ধু কন্যাকে হত্যা করতে চেয়েছিল, যারা ২০১৩ সালে মানুষ হত্যা করে উন্নয়নে বাধা সৃষ্টি করতে চেয়েছে এবং ২০১৪ সালের নির্বাচনকে বানচাল করে অগণতান্ত্রিক সরকার চেয়েছিল, তারাই আজ গুপ্ত হত্যার আশ্রয় নিয়েছে।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, এই আগস্ট মাসের ১৫ তারিখ ঘাতকের দল জাতির পিতাকে স্বপরিবারে হত্যা করেছিল। তারা ভেবেছিলো আওয়ামী লীগ ধ্বংস হয়ে যাবে। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ আবারো ঘুরে দাঁড়িয়েছে। আজকে শেখ হাসিনা শুধু বাংলাদেশের নেতা নন, তিনি বিশ্ব নেতা। তিনি বলেন, সারা বিশ্ব তাঁর গৃহীত পদক্ষেপের প্রসংশা করছে।

বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ এই সহচর আরো বলেন, জাতির পিতা সোনার বাংলার স্বপ্ন দেখেছিলেন। অনেক আশা নিয়ে তিনি এই দেশ স্বাধীন করেছিলেন। আজকে তাঁর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা সোনার বাংলা গড়ার লক্ষে কাজ করে যাচ্ছি। কোন অপশক্তিই এই অগ্রযাত্রাকে ব্যহত করতে পারবে না বলে তিনি উল্লেখ করেন।

মন্ত্রী ২০০১ সালের নির্বাচন পরিবর্তী অত্যাচারের কথা উল্লেখ করে বলেন, সেদিন বিএনপি-জামায়াত জোটের নির্মম অত্যাচারের শিকার হয়েছিলেন সারাদেশের আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা। তিনি বলেন, আমার বাড়ি ও গাড়িতে হামলা করা হয়েছিল।

তিনি বলেন, আজকের রাষ্ট্রপতি সেদিন ভোলায় এসেছিলেন। তাকে তখন মিটিং করতে দেয়া হয়নি। কিন্তু আমরা কোন প্রতিশোধ নেইনি। কারণ আমরা প্রতিহিংসার রাজনীতি করি না। তাই তিনি বিএনপি-জামায়াত থেকে সকলকে সতর্ক থাকার কথা বলে ঘরে ঘরে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে দূর্গ গড়ে তোলার আহ্বান জানান।

গণসমাবেশে আরো বক্তৃতা করেন, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ প্রশাসক আব্দুল মমিন টুলু, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. মোশারেফ হোসেন ও সম্পাদক নজুরুল ইসলাম গোলদার। উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি এডভোকেট জুলফিকার আহমেদ, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম নকিব, এনামুল হক আরজু, সাংগঠনিক সম্পাদক মইনুল হোসেন বিপ্লব, শহর আওয়ামী লীগ সভাপতি নাজিবুল্লাহ নাজু ও সম্পাদক আলী নেওয়াজ পলাশসহ বিভিন্ন অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

পরে হাজার হাজার জনতার উপস্থিতিতে সন্ত্রাস বিরোধী এক মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদিক্ষণ করে একই স্থানে মিলিত হয়। এ সময় মিছিলে আগতরা সন্ত্রাস ও জঙ্গি বিরোধী স্লোাগান দেয়।

এবিএন/শনি-১ম/সারাদেশ/প্রতিনিধি/মুস্তাফিজ/জনি

প্রধান শিরোনাম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত