logo
বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৬
 
ekattor
৩৩ হাজার ফুট নিচে পড়েও জীবিত!
৩৩ হাজার ফুট নিচে পড়েও জীবিত!
ঢাকা, ০৬ আগস্ট, এবিনিউজ : অনেক বছর আগের কথা। সময়কাল ২৬ জানুয়ারি ১৯৭২। সেদিন ঘটেছিল এক ভয়াবহ বিমান দুর্ঘটনা।
ভেসনা ভুলোভিচ। ২৩ বছর ধরে চাকরি করেন বিমানকর্মী হিসেবে। সেদিন, ডনেল ডগলাস ডি সি-৯-৩২ বিমানটিতে ডিউটি ছিল অন্য এক যুবতীর। যার নামও ছিল ভেসনার নামের সঙ্গে পুরো মিল- ‘ভেসনা’। কিন্তু ভুল করে ভেসনা ভুলোভিচই কাজে যোগ দেন ওই বিমানে।
কাজে যোগ দিয়েই ভেসনা ভুলোভিচের জীবনে ঘটে গেল এক অবিশ্বরণীয় ঘটনা। ডনেল ডগলাস ডি সি-৯-৩২ বিমানটি ৩৩,৩৩৩ ফুট উপরে দিয়ে আকাশে উড়ছিল। উড়তে উড়তে হঠাৎ ঘটে বিপর্যয়। আকাশ থেকে বিধ্বস্ত হয়ে পড়ে যায় নিচে। দুর্ঘটনায় বিমানে থাকা সবাই (মোট ২৭ জন) মারা যায়। কিন্তু একমাত্র বেঁচে যান ভুলোভিচ।
প্যারাসুট ছাড়াই আকাশ থেকে ৩৩,৩৩৩ ফুট নিচে পড়েও অবিশ্বাস্যভাবে প্রাণে বেঁচে যান ভেসনা ভুলোভিচ। তাকে যিনি উদ্ধার করেন তিনি হলেন ব্রুনো হেঙ্কে।
ব্রুনো হেঙ্কে বলেন, ভুলোভিচ ছিলেন ভেঙে যাওয়া বিমানের ঠিক মাঝামাঝি। উইংয়ের ঠিক ওপরেই। তার দেহ ছিল আরেকটি মৃতদেহের ঠিক নিচে। এই অবস্থায় তাকে উদ্ধার করা হয়।
উদ্ধারের পর ১৬ মাস কেটেছিল হাসপাতালে। আর তার মধ্যে ২৭ দিন কোমায় আচ্ছন্ন ছিলেন তিনি। প্রায় জীবনমৃত অবস্থা থেকে ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠেন।
ভেসনা ভুলোভিচের জন্ম ১৯৫০ সালে সার্বিয়া অঞ্চলের বেলগ্রেডে। সুস্থ হওয়ার পরে পুনরায় যোগ দেন সেই বিমান কোম্পানিতে। প্রথমদিকে ডেস্কে বসে কাজ করেন কিছুদিন। তারপর আবার ওড়া শুরু করেন। তিনি জানান, তার উড়তে কোনো ভয় নেই।
 
এবিএন/শনি-১ম/আন্তর্জাতিক/ডেস্ক/মুস্তাফিজ/সাদিক

প্রধান শিরোনাম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত