logo
বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৬
 
ekattor
  • হোম
  • সারাদেশ
  • খালেদা জিয়া বাংলাদেশ ও গণতন্ত্রের জন্য হুমকিস্বরূপ: তথ্যমন্ত্রী
খালেদা জিয়া বাংলাদেশ ও গণতন্ত্রের জন্য হুমকিস্বরূপ: তথ্যমন্ত্রী
খালেদা জিয়া বাংলাদেশ ও গণতন্ত্রের জন্য হুমকিস্বরূপ: তথ্যমন্ত্রী
তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু (ফাইল ছবি)

খুলনা, ০৫ আগস্ট, এবিনিউজ : তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া সন্ত্রাসী, খুনীদের কেয়ারটেকার ও সিন্ডিকেট প্রধান। তিনি বাংলাদেশ ও গণতন্ত্রের জন্য হুমকিস্বরূপ। তার সাথে কোন জাতীয় ঐক্য হতে পারে না। বঙ্গবন্ধু হত্যা ও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বেগম জিয়া আটকাতে পারেননি উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, তিনি জঙ্গি দমনও আটকাতে পারবেন না।

আজ খুলনার সিটি ইন হোটেলে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস দমনের লক্ষ্যে অনুষ্ঠিত এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন। বাংলাদেশ বেতার এ মতবিনিময় সভার আয়োজন করে।

গুলশান ও শোলাকিয়ার হামলা কোন বিচ্ছন্ন ঘটনা নয় উল্লেখ করে ইনু বলেন, এ ঘটনার পিছনেও ঘটনা রয়েছে। আর তা হলো ৯৩ দিনে বেগম খালেদা জিয়ার আগুন সন্ত্রাস, হেফাজত ও বেগম খালেদা জিয়ার মদদে তান্ডব, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ঠেকাতে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে হরতালের পর হরতাল ইত্যাদি। তিনি বলেন, এত কিছুর পরও যখন ব্যর্থ, তখন তারা গুপ্ত হত্যা ও জঙ্গীবাদের মদদ দিচ্ছে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ৭১’র নরহত্যা, ৭৫-এ বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা চালিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা সবই একই সূত্রে গাঁথা।

জঙ্গীবাদ কয়েকজন খেয়ালী যুবকের ঘটনা নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, ৭৫ এর ১৫ আগস্টের পর যে খুনীরা সংবিধান কাঁটাছেড়া করেছে, বঙ্গবন্ধু ও ইতিহাসকে নির্বাসনে পাঠিয়েছে, তারা ও জঙ্গীবাদ একই সূত্রে গাথা।

জঙ্গিরা যে অন্যায় যুদ্ধ ঘোষণা করেছে তা’ মোকাবেলা করার আহবান জানিয়ে ইনু বলেন, এ যুদ্ধের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। নিরপেক্ষ বা মধ্যবর্তী অবস্থানে থাকার কোন সুযোগ নেই। জঙ্গি ও তাদের দোসরদেরও চিহ্নিত করে চিরতরে নির্মূল করতে হবে।

ইনু বলেন, জামায়াতের সাথে ঐক্য, হেফাজতের সাথে ঐক্য, রাজাকার আল-বদরদের মন্ত্রীসভায় ঠাঁই দানকারীদের মিত্র হলেন বেগম জিয়া।

জঙ্গী দমনের নামে বিরোধী দল দমনের অভিযোগ নাকচ করে দিয়ে তিনি বলেন, যারা গুলশান, শোলাকিয়া ও কল্যাণপুরে ধরা পড়ে, তারা কেউই বিএনপি বা তাদের অঙ্গসংগঠনের কেউ না। তারা জেএমবি, হিযবুত তাহরীর ও আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সদস্য।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, জঙ্গি ছাড়া কাউকে দমন করা হচ্ছে না। তবে জঙ্গিদের একচুল ছাড় দেয়া হবে না বলেও তিনি হুশিয়ারি উচ্চরণ করেন।

তিনি বলেন, যারা জঙ্গিদের পক্ষে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছেন ও ওকালতি করছেন, তাদের নজরে রাখা হচ্ছে। যতদিন পর্যন্ত বেগম খালেদা জিয়া জামায়াতের সাথে থাকবেন ততদিন পর্যন্ত তিনি সন্দেহের তালিকায় থাকবেন। খালেদা জিয়াকে প্রমাণ করতে হবে তিনি জঙ্গিবাদের সাথে নেই, বলতে হবে তিনি জামায়াতের সাথে নেই।

আইন-শৃংখলা বাহিনীর প্রশংসা করে ইনু বলেন, পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি, সশস্ত্র বাহিনী জঙ্গি দমনে অত্যন্ত আন্তরিকতার সাথে কাজ করছে। যার প্রমাণ খুব অল্প সময়ে গুলশান ও কল্যাণপুরে জঙ্গিদের নির্মূল করেতে পেরেছে।
জঙ্গিদের উদ্দেশে তিনি বলেন, তোমাদের পালাবার পথ নেই। হয় আত্মসমর্পণ করো, না হয় ধ্বংস হয়ে যাও।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, অনেক বাধা বিপত্তি পেরিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খাদ্য উৎপাদন দ্বিগুণ, বিদ্যুৎ উৎপাদন বৃদ্ধি, শিক্ষার্থীদের হাতে প্রতিবছর ৩৩ কোটি বই পৌঁছে দিচ্ছেন। এমনকি পদ্মা সেতুর কাজ নিজ অর্থায়নে শুরু হয়েছে।
মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ বেতারের মহাপরিচালক এ কে এম নেছার উদ্দিন ভুইয়া।

বিশেষ অতিথি ছিলেন খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) উপাচার্য প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর, খুলনা বিভাগীয় কমিশনার মো. আব্দুস সামাদ, খুলনা রেঞ্জ ডিআইজি এস এম মনির উজ জামান, খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার নিবাস চন্দ্র মাঝি, খুলনা জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান প্রমুখ।

মতবিনিময় সভার শেষে তথ্যমন্ত্রী জাসদের নেতা কর্মীদের সাথেও মতবিনিময় এবং বাংলাদেশ বেতার খুলনা কেন্দ্রে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্যে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। এছাড়া সকালে খুলনা সার্কিট হাউজে খুলনা প্রেসক্লাবের নেতবৃন্দর সাথে মতবিনিময় করেন।

এবিএন/শুক্র-২য়/সারাদেশ/প্রতিনিধি/মুস্তাফিজ/জনি

প্রধান শিরোনাম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত